প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

অবশেষে শেয়ার কিনেছেন বিনিয়োগকারীরা

রুবাইয়াত রিক্তা: দীর্ঘ পতনের পর অবশেষে পুঁজিবাজারে গতকাল বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার কেনার প্রবণতা দেখা গেছে। বাজার-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার একাধিক বৈঠক ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের টানা দুই সপ্তাহ ধরে প্রতিবাদ বিক্ষোভের মুখে গতকাল বাজারে ইতিবাচক গতি দেখা যায়। দুই বাজারে সব সূচক ইতিবাচক হওয়ার পাশাপাশি লেনদেন বেড়েছে ১২২ কোটি টাকার বেশি। গতকাল বৃহৎ প্রায় সবগুলো খাতে ইতিবাচক গতি ছিল। মাঝারি ও ছোট খাতগুলোতেও ছিল শেয়ার কেনার প্রবণতা।
আগের দিনের তুলনায় দুই শতাংশ বেড়ে প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১৭ শতাংশ। এ খাতে ৭৫ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সাড়ে ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ন্যাশনাল পলিমার। শেয়ারটির দর সাত টাকা বেড়েছে। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। সম্প্রতি প্রকাশিত তৃতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, তৃতীয় প্রান্তিকে ন্যাশনাল পলিমারের ইপিএস বেড়েছে ৮৮ পয়সা। এছাড়া ন্যাশনাল টিউবসের প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৯০ পয়সা। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১৩ শতাংশ। এ খাতে ৬৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সোয়া সাত শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে অ্যাডভেন্ট ফার্মা। কোম্পানিটির সাড়ে ৯ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়। এছাড়া বেক্সিমকো ফার্মার সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে এক টাকা ২০ পয়সা। এরপরে ১২ শতাংশ লেনদেন হয় ব্যাংক খাতে। এ খাতে ৬৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ব্র্যাক ব্যাংকের সাড়ে ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৫০ পয়সা। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৬৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের এসকোয়্যার নিটের সাড়ে আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। এছাড়া মেট্রো স্পিনিংয়ের দর সোয়া সাত শতাংশ বেড়েছে। জ্বালানি খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের সোয়া সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১০ টাকা ৮০ পয়সা। বিমা খাতে ৫৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স ও ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে ৮৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের জেনেক্স ইনফোসিসের প্রায় ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৬০ পয়সা। সেবা ও আবাসন খাত শতভাগ ইতিবাচক ছিল। টেলিযোগাযোগ খাতের বিএসসিসিএলের দর চার টাকা ২০ পয়সা কমলেও গ্রামীণফোনের দর অপরিবর্তিত ছিল।

সর্বশেষ..