অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদারে  কাজ করবে চীন ও জাপান

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হলে তা বিশ্ব অর্থনীতির জন্য খুবই খারাপ পরিণাম বয়ে আনবে বলে একমত হয়েছে চীন ও জাপান। তাই এ যুদ্ধ এড়িয়ে আঞ্চলিক অর্থনৈতিক বন্ধন গড়তে একযোগে কাজ করার অঙ্গীকার করেছে বিশ্বের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ দুটি। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি শুল্কারোপ নিয়ে উত্তেজনার মধ্যে জাপানের সঙ্গে চীনের এ সম্পর্ককে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন বিশ্লেষকরা।
খবর রয়টার্স।
গতকাল সোমবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ওয়াই জাপান সফরে গিয়ে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনোর সঙ্গে বাণিজ্য উন্নয়নে একসঙ্গে কাজ করতে সম্মত হন। দীর্ঘ ৯ বছরের মধ্যে এই প্রথম কোনো চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করতে জাপান সফরে যান।
গত কয়েক সপ্তাহে আমদানি করা পণ্যে পাল্টাপাল্টি শুল্কারোপ করে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। এর ধারাবাহিকতায় জাপানও ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামে শুল্কারোপের বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের তোপের মুখে রয়েছে। তবে জাপানের দিক থেকে এখনও কোনো ফিরতি শুল্কারোপের ঘোষণা আসেনি।
তারো কোনো বলেন, আমরা বাণিজ্যযুদ্ধের ফলাফল নিয়ে আলোচনা করেছি। বাণিজ্যযুদ্ধ কারও জন্য সুবিধা আনবে না, বরং বিশ্ব অর্থনীতির জন্য তা ক্ষতিকর বলে দুই দেশের প্রতিনিধিরাই একমত হয়েছেন।
তিনি বলেন, গত আট বছরে চীন ও জাপান অর্থনৈতিকভাবে যথেষ্ট সক্ষমতা অর্জন করেছে। এমনকি আমাদের পারস্পরিক আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ভূমিকাও বৃদ্ধি পেয়েছে। আশা করি আলোচনার মাধ্যমে আমরা অর্থনৈতিক বন্ধন আরও জোরালো করে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম হব।
অন্যদিকে ওয়াং জানান, দুই দেশের আলোচনা আবার শুরু হওয়ার মাধ্যমে আমরা নতুন একটি সূচনার দিকে এগিয়ে চলেছি। আর এতে দুই দেশই অর্থনৈতিকভাবে আরও সমৃদ্ধ হব।
২০১৩ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ প্রকল্প ঘোষণা করেন। এর মাধ্যমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্য এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকাকে স্থল ও সমুদ্রপথে যোগ করার লক্ষ্য নিয়েছেন তিনি। জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং দীর্ঘ সময় পরে গত বছর সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে অঙ্গীকার করেছেন।
কূটনীতিক হিসেবে ওয়াং আট বছর জাপানে কাটিয়েছেন। তিনি বলেছেন, দু’দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য এটি একটি বড় সুযোগ। আলোচনায় তিনি কোনোর সঙ্গে উত্তর কোরিয়া ইস্যুসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।