মত-বিশ্লেষণ

অলাভজনক রাষ্ট্রায়ত্ত মিল দ্রুত বেসরকারিকরণ অত্যাবশ্যক

আবুল কাসেম হায়দার: কোনো দেশের সরকার কখনও ব্যবসা করে না, ব্যবসায়ীদের জন্য নিয়মকানুন তৈরি করে, ব্যবসাকে সহজ করে দেয়। কিন্তু আমাদের দেশে বিপরীত চিত্র। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরপর সব বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান রাষ্ট্রীয়করণ হয়। দীর্ঘদিন ধরে দেশে এই চর্চা হচ্ছে। কিছু শিল্পপ্রতিষ্ঠান সরকার বেসরকারি খাতে ছেড়ে দিয়েছে। তার পরও বহু শিল্পপ্রতিষ্ঠান সরকার কর্তৃক পরিচালিত হচ্ছে। অধিকাংশ শিল্পপ্রতিষ্ঠান লাভ না করে লোকসান দিয়ে যাচ্ছে। সরকারি শিল্পপ্রতিষ্ঠান বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়ার জন্য নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। তার পরও বহু প্রতিষ্ঠান সরকার চালাচ্ছে। সবচেয়ে বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান আদমজী জুট মিল বেশ কয়েক বছর আগে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ওই স্থানে বর্তমানে নানা শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে।
চিনি, পাটপণ্য, কাগজ, সুতা, কাপড় ও সিমেন্টের ব্যবসা করতে গিয়ে সরকারের লোকসানের বোঝা বছর বছর বাড়ছে। পাঁচটি সংস্থার অধীনে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানাগুলোর সম্মিলিত লোকসান থেকে লাভ বাদ দিয়ে হিসাব করলে দেখা যায়, ১০ বছরে নিট ক্ষতির পরিমাণ বেড়ে প্রায় ছয় গুণ হয়েছে।
২০০৮-০৯ অর্থবছরে এসব কারখানার লোকসান ছিল মাত্র ৩২৫ কোটি টাকা। সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে লোকসান বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮৫১ কোটি টাকা। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, এসব কারখানার বড় অংশ ভবিষ্যতে লাভের মুখ দেখবে, এমন আশাও নেই। ফলে সরকারকে বছর বছর লোকসানের বোঝা বইতে হবে। ভর্তুকি দিতে হবে জনগণের করের টাকা থেকে। অথবা লোকসান কমাতে বিশেষ পদক্ষেপ নিতে হবে।
এই পাঁচ সংস্থার মধ্যে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি), বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন (বিএসএফআইসি) ও বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশন (বিএসইসি) পরিচালিত হয় শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে। বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন (বিজেএমসি) ও বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস করপোরেশন (বিটিএমসি) রয়েছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অধীনে। এসব মিল যখন হয়, তখন দেশের বেসরকারি খাত পিছিয়ে ছিল। এখন চিনি, পাটপণ্য, সিমেন্ট, কাগজ, সুতা ও বস্ত্রে বেসরকারি খাত এত এগিয়ে গেছে যে, সরকারি কারখানা প্রতিযোগিতায় পারছে না।
এ বিষয়ে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত বেশির ভাগ কারখানা যেভাবে চলছে, সেভাবে চলতে দেওয়ার সুযোগ কম। এখন এগুলো নিয়ে ভালোভাবে চিন্তার সময় এসেছে। আগামী বছর এসব কারখানায় লোকসানের পরিমাণ দুই হাজার কোটি টাকা ছাড়াবে।
মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, মিলগুলোর ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। এজন্য পুনর্গঠন কৌশল ঠিক করতে একটি কমিটি গঠন করে তাদের সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। পণ্যের বাজারদর নিয়ন্ত্রণ অথবা কৃষকদের সহায়তা অন্য কোনোভাবে করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন তিন সংস্থা
বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) ১২টি কারখানায় সার, কাগজ, সিমেন্ট, স্যানিটারি ওয়্যার ও গ্লাসশিট উৎপাদিত হয়। সংস্থাটির বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দুটি বাদে বাকি ১০ কারখানাই লোকসান দিয়েছে। কারখানাগুলোর মোট লোকসান দাঁড়িয়েছে ৬২২ কোটি টাকা। বিগত ১০ বছরের মধ্যে চার বছর কারখানাগুলো লাভে ছিল।
লোকসানের কারণ হিসেবে বিসিআইসি কারখানার বয়স, দক্ষ জনবলের অভাব, চলতি মূলধনের ঘাটতি, কারখানার সংস্কার, সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন বা বিএমআরই না করা, বেতন বৃদ্ধি এবং উৎপাদন উপকরণ ও গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধিকে দায়ী করেছে।
বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) অধীনে থাকা ১৮টি কারখানার মধ্যে লাভে আছে মাত্র দুটি। এ দুটিতে আবার চিনি উৎপাদিত হয় না। চিনিকলের মধ্যে একটিও লাভে নেই। দেশে মোট চিনির চাহিদা ১৪ লাখ টনের বেশি। এর মধ্যে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সরকারি মিলগুলোতে উৎপাদিত হয় ৬৮ হাজার ৫৬২ টন চিনি, যা মোট চাহিদার পাঁচ শতাংশের নিচে। বিশ্ববাজারে চিনির দাম কম। সরকারি মিলগুলোকে সুরক্ষা দিতে চিনি আমদানিতে উচ্চ শুল্ক রেখেছে সরকার। যদিও বিএসএফআইসি দাবি করে, চিনির দর নিয়ন্ত্রণে রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকল টিকিয়ে রাখা দরকার। বিএসএফআইসি লোকসানের কারণ হিসেবে পুরোনো মিল, চলতি মূলধনের অভাব, আখের বিপরীতে চিনির দাম না বাড়ানো, আখের জাত ভালো না হওয়াসহ বিভিন্ন কারণ উল্লেখ করেছে। তারা উত্তরণের উপায় হিসেবে আখের জাত উন্নত করা, কারখানার বিএমআরই করা, চিনির দাম বাড়ানো, চিনি আমদানি ও বিপণনের কর্তৃত্ব তাদের হাতে দেওয়াসহ বিভিন্ন পথের কথা বলছে।
বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশনের (বিএসইসি) অধীনে কারখানা আছে ১৩টি, যার চারটি বর্তমানে বন্ধ। সরকারের পাঁচটি সংস্থার মধ্যে এটিই কেবল লাভে আছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিএসইসির লাভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৭৬ কোটি টাকা।
বস্ত্র ও পাটশিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থা
বিজেএমসির অধীনে ২৫টি পাটকল রয়েছে, যার তিনটি নন-জুট। বাকি ২২টি পাটকল, যার সব কটিই লোকসানে রয়েছে। এসব পাটকলের মজুরি পরিশোধে প্রায় প্রতিবছরই সংকট তৈরি হয়। ফলে সরকারের কাছে হাত পাতে কর্তৃপক্ষ।
বিজেএমসির চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ নাছিম বলেন, কারখানাগুলোকে লাভে আনতে স্থায়ী শ্রমিকের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। পুরোনো কারখানাগুলোর বিএমআরই করা দরকার। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী পণ্য উৎপাদনের ব্যবস্থা নিতে হবে। কাজ না করে মজুরি নেওয়ার প্রবণতা বন্ধ করাও প্রয়োজন।
বিটিএমসির লোকসানের পরিমাণ অবশ্য কম ও কমছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তাদের লোকসানের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে পাঁচ কোটি ২৮ লাখ টাকা, যা আগের বছর আট কোটি টাকা ছিল। স্বাধীনতার পর ২০১০ সাল থেকে বিটিএমসির অধীনে থাকা ৫৮টি কারখানা অবসায়ন, হস্তান্তর ও বিক্রি করা হয়েছে। এখন সংস্থাটির অধীনে ২৫টি কারখানা রয়েছে, যা বিভিন্নভাবে পরিচালিত হচ্ছে।
দায় নেই কারও
ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আবুল কাসেম খান বলেন, বেসরকারি খাতে লোকসান হলে তা ব্যবসায়ীর দায় হিসেবে থেকে যায়। সরকারি কারখানায় লোকসান হলে তার দায় কারও ওপর চাপে না। এ কারণে কারও মাথাব্যথা নেই। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তিনি বলেন, এসব কারখানা ও ব্যাংক টিকিয়ে রাখতে জনগণের করের টাকা দেওয়া হচ্ছে। সার কারখানাগুলো রেখে বাকিগুলো বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া দরকার।
সব সরকারি শিল্প বেসরকারি খাতে প্রদান
১. ব্যবসা থেকে সরকারের সরে আসা উচিত, তা না হলে লোকসান দিয়ে যেতে হবে। কারণ ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান যেখানে লাভ করছে, সেখানে রাষ্ট্রীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান ক্ষতির সম্মুখীন। তাও কোটি কোটি টাকা। সরকারকে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সব সরকারি শিল্পপ্রতিষ্ঠান বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হলে সেক্ষেত্রে অবশ্যই উপায় বের হয়ে আসবে।
২. দেশে রেল খাত, বিমান খাত ও গ্যাস থেকে উৎপাদিত সার কারখানা ছাড়া সব শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। বর্তমানে দেশে শিল্পোদ্যোক্তাদের দিয়ে রেল বিভাগ পরিচালনা করা সম্ভব নয়। তেমনই বিমান ও গ্যাসভিত্তিক সার কারখানা এবং পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে উল্লিখিত খাতগুলো সরকার কর্তৃক পরিচালিত হচ্ছে।
৩. এখন প্রধানমন্ত্রীকে উদ্যোগ নিতে হবে। তিনি একমাত্র ভরসা এই সমস্যা সমাধানের মূল শক্তি। তিনি এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য একটি জাতীয় পর্যায়ে কমিটি গঠন করে দিতে পারেন।
ওই কমিটি রাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায়ের শীর্ষ ব্যাক্তিদের নিয়ে হতে পারে। যত দ্রুত এই কমিটি গঠিত হবে, ততই দেশের মঙ্গল। ওই কমিটির পরামর্শ অনুযায়ী রাষ্ট্রকে কার্যকর ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে। রাষ্ট্রের কষ্টের করের টাকা দিয়ে যুগ যুগ ধরে এসব শিল্প খাতে ভর্তুকি দিয়ে যাওয়া অর্থ হচ্ছে বড় বোকামি।
৪. দেশে সরকারি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের লোকসান ২০০৮-০৯ সালে ছিল মাত্র ৩২৫ কোটি টাকা। আর বর্তমানে ক্ষতির পরিমাণ এক হাজার ৮৫১ কোটি টাকা। এই বিশাল লোকসান আমাদের অর্থনীতিতে বড় চ্যালেঞ্জ। যতই দিন যাবে, ততই লোকসানের পরিমাণ বাড়তে থাকবে। এই লোকসানের অনেকের মধ্যে ব্যাংক খাতকে ধরা হয়নি। সরকারি চারটি ব্যাংক দিনের পর দিন বিশাল লোকসানের সম্মুখীন। আর্থিক খাতে উত্থিত উন্নতির স্বার্থে সরকারি ব্যাংকগুলো বেসরকারি খাতে দ্রুত ছেড়ে দেওয়া উচিত।
৫. দেশ স্বাধীন হওয়ার ৪৮ বছর অতিবাহিত হয়েছে। আজও আমরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রয়েছি। বারবার প্রমাণিত হওয়ার পরও নানা অজ্ঞাত কারণে অথবা রাজনৈতিক কারণে আমরা রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোকে বেসরকারি করতে পারছি না। সরকারকে রাজনৈতিকভাবে দেশের স্বার্থে কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বর্তমান সরকার ১১ বছর ধরে অনেক কঠিন ও কঠোর সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নতির স্বার্থে রাষ্ট্রায়ত্ত সব লোকসানি শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া খুবই জরুরি।

সাবেক সহসভাপতি, এফবিসিসিআই, বিটিএমইএ বিজিএমইএ, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি
প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি ও
ইসলামিক ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড

সর্বশেষ..