অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস ২০১৮ ছয় পুরস্কার জিতল বাংলাদেশ

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম বড় আসর অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস-২০১৮তে একটি ক্যাটেগরিতে চ্যাম্পিয়ন অ্যাওয়ার্ড অর্জনসহ ছয়টি পুরস্কার জিতেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ থেকে সিনিয়র স্টুডেন্ট ক্যাটেগরিতে একমাত্র চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের ফিড’এম প্রকল্প।
মেরিট পুরস্কার জিতেছে ক্রস ক্যাটেগরিতে (স্টার্টআপ) সিন্দাবাদ ডটকম, সিনিয়র স্টুডেন্ট ক্যাটেগরিতে সেন্ট যোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রকল্প সবজান্তা, ইন্ডাস্ট্রিয়াল (অ্যাগ্রিকালচার) ক্যাটেগরিতে এসিআই অ্যাগ্রিবিজনেসের প্রকল্প ফসলি, ইন্ডাস্ট্রিয়াল (ট্রান্সপোর্ট) ক্যাটেগরিতে যান্ত্রিক লিমিটেডের যান্ত্রিক নাইন ওয়ান ওয়ান, ইনক্লুশন ও কমিউনিটি সার্ভিস ক্যাটেগরিতে এটুআই-সফটবিডি লিমিটেডের যৌথ প্রকল্প একসেবা।
এবার ১৫টি ইকোনমি থেকে ২৬৬টি প্রকল্প অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস-২০১৮তে অংশ নিয়েছে। বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, সারা দেশ থেকে বাছাই করে ২৮ প্রতিষ্ঠানের ২৯টি প্রকল্পকে আমরা অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস ২০১৮-এর জন্য মনোনীত করেছি। বাংলাদেশের এ অর্জন বিশ্বপরিমণ্ডলে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করল।
বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ডসের আহ্বায়ক ও অ্যাপিকটার বিচারকমণ্ডলীর সদস্য দিদারুল আলম বলেন, আমরা বেসিস থেকে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের বিস্তৃতি শুধু বেসিস সদস্যদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই।
৯ অক্টোবর ২০১৮ জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস-২০১৮। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর অ্যাপিকটার এক্সকো মিটিং ও বিচারকদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। ১০ অক্টোবর শুরু হয় আনুষ্ঠানিক প্রকল্প বিচারপর্ব। ১১ অক্টোবর চীনের ঐতিহ্যবাহী পোশাকে দেশটির সংস্কৃতির নানা দিক ফুটিয়ে তুলে আয়োজন করা হয় গুয়াংঝু নাইট। অনুষ্ঠানটিতে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল নিজেদের সংস্কৃতির বিভিন্ন দিক বিশ্বপরিমণ্ডলে তুলে ধরে। অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডসে চীনের পিডব্লিউটিসি এক্সপোতেও অংশ নেয় বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল। ১৩ অক্টোবর পুরস্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে শেষ হয় অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডস-২০১৮।
উল্লেখ্য, এবার ৮১ সদস্যের প্রতিনিধিদল নিয়ে চীনের গুয়াংঝুতে অনুষ্ঠিত অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ডসে অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশ।