আবেদনের এক মাসের মধ্যে শ্রমিকদের সরকারি সহায়তা: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: শ্রমিকদের কাছ থেকে শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনে সহায়তার আবেদন অনলাইনে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। তিনি বলেন, ‘শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনে আবেদন করলে সর্বোচ্চ একমাসের মধ্যে শ্রমিকরা সরকারি সহায়তার অর্থ পাবেন।’
গতকাল বুধবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন বাংলাদেশের (ইনসাব) জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, সফটওয়্যারের কাজ চলছে। এটি সম্পন্ন হলে শ্রমিকদের কাছ থেকে শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনে সহায়তার আবেদন অনলাইনে নেওয়া হবে। এতে আবেদন গ্রহণ ও বাছাই কার্যক্রম সহজ হবে। রূপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশের মাধ্যমে সর্বোচ্চ একমাসের মধ্যে আবেদনকারীর হাতে সহায়তার অর্থ পৌঁছানো সম্ভব হবে।
তিনি বলেন, প্রতিদিন শত শত আবেদন জমা হচ্ছে। বাছাই করা, ভুলত্রুটি সংশোধন করে, আবার অনেক সময় নতুন করে আবেদন গ্রহণ করে চেকের মাধ্যমে সহায়তা দিতে জটিলতা তৈরি। এতে সময় বেশি লাগছে। অনলাইন সিস্টেম চালু হলে এ কাজটি আরও দ্রুত ও স্বচ্ছ হবে।
দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণকারী শ্রমিকের ক্ষতিপূরণের পরিমাণ এক লাখ টাকা অপ্রতুল উল্লেখ করে শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শ্রম আইন সংশোধের কাজ চলছে। শ্রমিকের ক্ষতিপূরণের পরিমাণ অন্তত শতভাগ বাড়বে।
তিনি বলেন, ‘নির্মাণ শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তাদের নিরাপত্তা সরঞ্জাম ব্যবহারের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। এতে দুর্ঘটনা কমবে, শ্রমিকের মৃত্যুর হার কমবে। মালিকরাও নিরাপত্তা সরঞ্জাম সরবরাহে বাধ্য হবে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয় সারাদেশে ইমারত নির্মাণ খাতে কর্মরত শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ৩৭ লাখ। পত্রিকার খবর অনুযায়ী গত ২০১৭ সালেই ১৩৪ জন নির্মাণ শ্রমিক কমস্থলে দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেছে এবং ৯৪ জন স্থায়ী পঙ্গুত্ববরণ করেছে।
ইনসাবের সভাপতি মো. রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফ্ফর হোসেন
পল্টু প্রমুখ।
, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক নেতা ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ লেবার স্টাডিজের (বিল্স) নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহমেদ ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো, আবদুর রাজ্জাক বক্তব্য রাখেন।
এর আগে সকালে শ্রম প্রতিমন্ত্রী ‘কর্মস্থলে নিরাপত্তা চাই’ সেøাগানে পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে ইনসাবের জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।