বিশ্ব সংবাদ

আলোচনা চালিয়ে যাবে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: কোনো ধরনের চুক্তি ছাড়াই বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের দুদিনব্যাপী বাণিজ্য আলোচনা শেষ হয়েছে। তবে ভবিষ্যতে এ আলোচনা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে দুই দেশ। খবর: রয়টার্স।
প্রতিবেদন মতে, গত ৯ ও ১০ মে দুদিনব্যাপী বাণিজ্য আলোচনায় চুক্তিতে না পৌঁছাতে পারলেও দুদেশের মধ্যকার বাণিজ্যযুদ্ধে যাতে বিশ্ব অর্থনীতিতে কোনো ধরনের নেতিবাচক প্রভাব না পড়ে, সেদিকে দু’পক্ষই খেয়াল রাখবে বলে জানায়।
গত শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানান, বৈঠকে দুদেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে গঠনমূলক আলোচনাই হয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও আমার মধ্যকার সম্পর্ক অটুট থাকবে। আর ভবিষ্যতেও এ ধরনের আলোচনা অব্যাহত থাকবে।
সম্প্রতি চীনা পণ্যে আরোপিত শুল্কের ব্যাপারে ট্রাম্প বলেন, ‘কত শতাংশ শুল্ক থাকবেÑতা নির্ভর করছে আমাদের ভবিষ্যৎ আলোচনার ওপর।’ অন্যদিকে দুদেশের মধ্যকার বাণিজ্য আলোচনা ভালোই হয়েছে বলে জানিয়েছেন চীনের ভাইস প্রিমিয়ার লিউ হি।
এর আগে ২০ হাজার ডলারের চীনা পণ্য আমদানিতে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করার ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। এমন সিদ্ধান্তে ‘পাল্টা পদক্ষেপ’ নেওয়া হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে চীন।
দেশ দুটির মধ্যে বাণিজ্যযুদ্ধ ব্যবসায়ী ও ক্রেতার মধ্যে যেমন অনিশ্চয়তা তৈরি করেছে, তেমনি বিশ্ব অর্থনীতিতেও প্রভাব ফেলেছে। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির ওপর এর প্রভাব কেমন তা কিছুটা এড়িয়ে গেছেন ট্রাম্প। তবে কিছু মার্কিন প্রতিষ্ঠান ও ক্রেতার জন্য শুল্ক বাড়ানোটা একটি ধাক্কার মতো বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এশিয়ান ট্রেড সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক ডেবোরাহ এলমস বলছেন, ‘এটি অর্থনীতিতে এক বড় ধাক্কা দিতে যাচ্ছে।’
তবে কেউ কেউ মনে করছেন, চীন এখনও আলোচনার চেষ্টা করবে। কারণ, বাণিজ্যযুদ্ধ থামানো খুবই জরুরি। পিটারসন ইনস্টিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিকসের গ্যারি হাফবাউর বলেন, বাণিজ্যযুদ্ধ চীনের অর্থনীতি ও বাণিজ্য ক্ষেত্রের জন্য ক্ষতিকর হবে। এছাড়া বিশ্ব অর্থনীতির জন্যও এর ফল খারাপ হবে। তাই চীনের উচিত হবে ক্ষুব্ধ না হয়ে ঠাণ্ডা মাথায় সমাধান করা।’
বহুদিন ধরেই বৈরী সম্পর্কের মধ্যে গত বছর যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হয়। একে অন্যের ওপর কয়েক বিলিয়ন ডলার শুল্কারোপ করে বাণিজ্যযুদ্ধের দিকে এগিয়ে গেছে তারা। উভয় দেশের অর্থনীতিতে এর প্রভাব বুঝতে পেরে এ বাণিজ্যযুদ্ধ অবসানে আলোচনা শুরু করে দুদেশ।
সম্প্রতি আর্জেন্টিনার বুয়েন্স এইরেসে জি-২০ সম্মেলনে ৯০ দিনের জন্য বাণিজ্যযুদ্ধ স্থগিতে একমত হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, যা গত ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়। এ সময়ের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তারা। অর্থাৎ ১ মার্চের মধ্যে নতুন বাণিজ্য চুক্তিতে পৌঁছাতে হবে দেশ দুটিকে। যদি সেটা না হয়, তাহলে নতুন করে শুল্কারোপের হুমকি দিয়ে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। চীনও পাল্টা প্রতিশোধের হুমকি দিয়ে রেখেছিল। কিন্তু সর্বশেষ বৈঠকে আলোচনা ইতিবাচক হলে ট্রাম্প তার দেওয়া এ হুমকি থেকে সরে আসেন। কিন্তু এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে এসে ফের হুমকি দিলেন তিনি।

সর্বশেষ..