ইউডা’র চারুকলা

রাহাতুল ইসলাম: নাগরিক ব্যস্ততায় অনেক সময় শিল্পীর মনেও আসে না সৃজনশীল ভাবনা। তাছাড়া শিল্পীর মধ্যে মানবিক গুণাবলি থাকাও জরুরি। এসব ভাবনায় মানবিক গুণাবলিসম্পন্ন শিল্পী গড়ার জন্য ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভের (ইউডা) চারুকলা বিভাগের কোর্স কারিকুলাম সাজানো হয়েছে ব্যতিক্রমী ও জীবনমুখী কোর্স দিয়ে।

২০০২ সালের সেপ্টেম্বরে তিন শিক্ষক ও ২৬ শিক্ষার্থী নিয়ে পথচলা শুরু চারুকলা বিভাগের। ইতোমধ্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন প্রায় ১২০০ শিক্ষার্থী। বর্তমানে পড়ালেখা করছেন পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী। জাপানের একজনসহ ২৫ শিক্ষক রয়েছেন এখানে।

চারুকলা বিভাগের কোর্স কারিকুলামে আছে নতুনত্ব। এর মধ্যে অ্যাডভান্সড ড্রইং, কোলাজ আর্ট, রাইটিং আ’বাট আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন, রেনের্সা আর্ট, ফাউন্ড অবজেক্ট স্টাডি, ফোক আর্ট, ইনস্টলেশন আর্ট, ওল্ড মাস্টার স্টাডি, গ্যালারি ম্যানেজমেন্ট কোর্স, রেস্টোরেশন অব আর্ট ওয়ার্ক ও অবজারভেশন অব নেচার অ্যান্ড স্টাডি অন্যতম। অবজারভেশন অব নেচার অ্যান্ড স্টাডি কোর্স করতে শিক্ষার্থীরা চলে যান শহর ছেড়ে দূরের কোনো গ্রামে। প্রকৃতির সঙ্গে মেলামেশায় যে অভিজ্ঞতা তা হাতের ছোঁয়ায় কখনও ক্যানভাসে, কখনও বালু ভাস্কর্যে তুলে আনেন শিক্ষার্থীরা।

চারুকলা বিভাগে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, মেধাবী ও পাহাড়ি এলাকা থেকে লেখাপড়া করতে আসা শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে বৃত্তির ব্যবস্থা।

দেশ-বিদেশের নানা পুরস্কার অর্জন করেছেন এখানকার ছাত্র-শিক্ষক। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে আয়োজিত ১৭তম দ্বিবার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনীতে ৪৭টি দেশের শিল্পীর শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর জন্য মনোনীত হয়। ওই প্রদর্শনীতে ইউডার শিক্ষার্থীরাও অংশ নেন। অনুষ্ঠানে ৯ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। তার মধ্যে ইউডা থেকে দুই শিক্ষার্থী পুরস্কার পান। এ বছর জাতীয় চিত্রকলা প্রদর্শনীতে ১০ জনকে পুরস্কৃত করা হয়। এর মধ্যে দুটি পুরস্কার ইউডার। দেশে আয়োজিত অন্যতম জনপ্রিয় প্রতিযোগিতা হলো ইয়াং আর্টিস্ট এক্সিবিশন। গত বছর এ প্রদর্শনীতে ইউডার দুই শিক্ষার্থী পুরস্কার অর্জন করেন। বিভাগটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই নানা জাতীয় দিবসে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে।

চারুকলা বিভাগটির অবস্থান ধানমন্ডিতে। সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে প্র্যাকটিক্যাল ক্লাস (স্নাতক)। বিকাল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত স্নাতকোত্তর ক্লাস।