ইসলামপুরে ব্রহ্মপুত্র সেতুর নিচে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন  

 

সাহিদুর রহমান, জামালপুর: জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র সেতুর নিচ থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে ভাঙন হুমকি বাড়ছে ১০১ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটির। কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে হুমকি দিচ্ছে বালিদস্যুরা। কয়েক দফা লিখিত অভিযোগ করা হলেও কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না প্রশাসন।

ইসলামপুরে ব্রহ্মপুত্র নদে নেই কোনো বালুমহাল, নেই জেলা প্রশাসনের অনুমতি। কিন্তু এরপরও পাইলিং ঘাটে নবনির্মিত ব্রহ্মপুত্র সেতুর নিচ থেকে প্রভাবশালীরা বালি উত্তোলন করে চলেছেন। গত বছর জুন থেকে চলছে অবৈধভাবে প্রতিদিন প্রায় ১৫০ ট্রাক্টর বালি উত্তোলন। এতে ভাঙন হুমকি বাড়ছে ১০১ কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত সেতুসহ এলাকাবাসীর।

সরেজমিনে দেখা যায়, পাইলিং ঘাট এলাকায় ঢুকতেই সাত থেকে আটটি ট্রাক্টর বোঝাই করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বালি। তিনটি ড্রেজার দিয়ে ব্রহ্মপুত্র সেতুর প্রায় ১০০ মিটার দূরত্বের মধ্যে আরও ছয়-সাতটি ট্রাক্টরে বালি তোলা হচ্ছে। এ সময় কয়েকজন শ্রমিক জানান, তারা শহরের বিভিন্ন স্থানে বালি নিয়ে বিক্রি করেন। প্রতি ট্রাক্টর বালি বিক্রি হয় ১২০০ টাকা করে।

পাইলিং ঘাট এলাকার প্রবীর কর্মকার জানান, পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি শহিজল ইসলাম মক্কর, সুজন পাল ও স্থানীয় একটি চক্র নদের পানি কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই নতুন এ সেতুর খুব কাছ থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করছে। বালি উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসককে লিখিত অভিযোগ করেও কোনো কাজ হয়নি।

একই এলাকার ওমল দাস জানান, এভাবে বালি তুললে তাদের ঘরবাড়ি নদে চলে যাবে। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন অবহিত। কিন্তু বালি উত্তোলনকারীরা প্রভাবশালী, তাই ভয়ে কেউ কিছু বলতে সাহস পান না। এভাবে বালি তোলা চলতে থাকলে নদে ভাঙন ভয়াবহ রূপ নেবে। সেতুটিও হুমকির মুখে পড়বে। এছাড়া এলাকার ফসলি জমিও ভাঙনের শিকার হবে।

এ ব্যাপারে বালি উত্তোলনকারী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি শহিজল ইসলাম মক্কর জানান, ‘আমরা দলীর লোক। আমাদের কোনো কাজ নেই, তাই বালি বিক্রি করে সংসার চালাতে হয়।’ সুজন পাল জানান, ‘ওপর মহলকে ম্যানেজ করা আছে, তাই কোনো ধরনের বাড়াবাড়ি করবেন না।’

উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ আহসান আলী জানান, সেতুর দু’পাশের নিচ থেকে বালি তুললে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান, অবৈধ বালি উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে শিগগিরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।