বাণিজ্য সংবাদ

ই-কমার্সে গ্রাহক সন্তুষ্টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক: গ্রাহক সন্তুষ্টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ক্রেতাদের আস্থা অর্জন করতে ই-কমার্স ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর জেনারেল পোস্ট অফিসে (জিপিও) দুদিনের ই-কমার্স মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ব্যবসায় সফল হতে চাইলে এক দিন-দুই দিনের জন্য চিন্তা করলে হবে না। একবার-দুবার চিন্তা করে প্রতারক। যারা স্থায়ী ব্যবসা করতে আসে, তারা তাৎক্ষণিকভাবে লাভটাকে মুখ্য বিষয় হিসেবে দেখে না।
প্রথাগত ক্যাশ অন ডেলিভারির জায়গায় অদূর ভবিষ্যতের ডিজিটাল পেমেন্ট পদ্ধতি প্রবর্তনে প্রস্তুতি নিতে ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান মোস্তাফা জব্বার।
দেশজুড়ে ই-কমার্স ছড়িয়ে দিতে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) ও ডাক বিভাগের উদ্যোগে ‘ই-কমার্সে ডাক’ স্লোগানে গত ৩০ মার্চ থেকে বিভাগীয় শহরের পোস্ট অফিসগুলোতে চলছে ই-কমার্স মেলা। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল থেকে শুরু হয় ঢাকায় ই-কমার্স মেলা। দুই দিনের এ ডাকমেলার মধ্য দিয়েই শেষ হবে বিভাগীয় পর্যায়ের জাতীয় ই-কমার্স ডাকমেলা।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে থাকবে নানা অফার ও উপহার। মেলায় প্রবেশের জন্য কোনো ফি লাগবে না। মেলায় ছয়টি প্যাভিলিয়ন ও ছয়টি মিনি প্যাভিলিয়নসহ মোট ৮০টি স্টল রয়েছে।
অন্যদের মধ্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব আশোক কুমার বিশ্বাস, ডাক মহাপরিচালক সুধাংশু শেখর ভদ্র, ই-ক্যাব সভাপতি শমী কায়সার ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহেদ তমাল অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।
স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মহাপরিচালক সুধাংশু শেখর ভদ্র বলেন, আমরা ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করেছি। ডাক বিভাগও এর বাইরে নয়। দেশজুড়ে অনুষ্ঠিত ই-কমার্স ডাকমেলা সেই বার্তাই সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশের কাক্সিক্ষত লক্ষ্য অর্জনে ই-ক্যাব ও ডাক বিভাগের মেলবন্ধনে নাগরিক জীবন আয়াসসাধ্য এবং পণ্য ও সেবা সহজলভ্য হবে।
ই-ক্যাব সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, প্রায় দুই মাস ধরে দেশের ছয়টি বিভাগে ই-কমার্স ডাকমেলার আয়োজন করেছি। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কেবল বরিশালে মেলা করেছি। সব বিভাগেই মেলায় ৪০টির মতো ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। মেলার মাধ্যমে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান এবং ডাক বিভাগের মাধ্যমে মেলবন্ধন রচিত হয়েছে। ডাক বিভাগের ই-পোস্ট সেবার মাধ্যমে ৪০ হাজারের মতো পণ্য সরবরাহ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি পণ্যও মিসিং হয়নি।
ডাক বিভাগের সাবেক মহাপরিচালক সুশান্ত কুমার মণ্ডল বলেন, ভবিষ্যতে ই-কমার্স এবং নগদ বাংলাদেশ ডাক বিভাগকে নেতৃত্ব দেবে। এই সেবা দুটোকে এগিয়ে নিতে পারলে সাফল্য আসবে। এজন্য ই-ক্যাব সদস্যভুক্ত ৯০০ ই-কমার্স মার্চেন্টকে ভালোভাবে সেবা দিতে পারলে ক্রেতারা আর দোকানে যাবেন না।

সর্বশেষ..