দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

ঈদে ১২ দিন সিএনজি ফিলিং স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবার ঈদুল ফিতরের আগে-পরে ১২ দিন দেশের সব সিএনজি ফিলিং স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম। ঈদুল ফিতর সামনে রেখে সারা দেশে যোগাযোগ নির্বিঘ্ন করতে গতকাল সচিবালয়ে এক বৈঠকের পর তিনি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
সচিব বলেন, সিএনজি স্টেশন ঈদের আগে সাত দিন ও পরে পাঁচ দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার জন্য জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যাতে জ্বালানির সমস্যা না হয়। প্রতিবারই এটি করা হয়। এছাড়া ঈদের তিন দিন আগে থেকে মহাসড়কে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও লরি চলাচল বন্ধ থাকবে বলে সভা শেষে জানান সচিব। তিনি বলেন, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও লরি চলাচল বন্ধ থাকলেও অন্যান্য বছরের মতোই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য এবং কাঁচামালবাহী বাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।
প্রসঙ্গত, এমনিতে দেশের সিএনজি স্টেশনগুলোতে বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। ঈদের পাঁচ দিন পর থেকে আবারও আগের নিয়মে দিনে চার ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ থাকবে।
২০১৯ সালের বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী, রমজান মাস ২৯ দিন ধরে নিয়ে ৪ থেকে ৬ জুন ঈদুল ফিতরের ছুটি নির্ধারণ করেছে সরকার। এরপর দুদিন শুক্র ও শনিবার হওয়ায় অফিস বন্ধ থাকবে ৮ জুন পর্যন্ত। ৪ জুন ঈদের ছুটি শুরুর আগে ২ জুন থাকবে শবইকদরের ছুটি। তার আগে দুদিন শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি। ফলে ছুটি শুরুর আগে মে মাসের শেষ থেকেই মহাসড়কে শুরু হয়ে যাবে ঈদযাত্রার ভিড়। এ কারণে এবার ঈদের সাত দিন আগে থেকেই সিএনজি ফিলিং স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হয় সভায়।
ঈদ সামনে রেখে বিআরটিসি অতিরিক্ত বাসের ব্যবস্থা করবে এবং অন্যবারের তুলনায় এবার বাস বেশি থাকবে জানিয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, মহাসড়কের অবস্থা ভালো আছে। ঈদে কোনো সমস্যা হবে না। ঈদে সড়কে চাপ কমাতে ঢাকার পোশাক কারখানার মালিকদের একদিনে ছুটি না দিয়ে ধাপে ধাপে ছুটি দিতে মালিক সমিতিকে অনুরোধ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
এদিকে সড়ক-মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) মোবাইল কোর্ট কার্যকর থাকবে।
সচিব জানান, যানবাহনের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর টার্মিনালগুলোতে বিআরটিএ’র ভিজিল্যান্স টিম কার্যকর থাকবে। ঈদের আগের দিন যাত্রীর চাপ নিয়ন্ত্রণে গার্মেন্ট কারখানাগুলো ধাপে ধাপে ছুটি দেওয়ার জন্য বিজিএমইএকে অনুরোধ করা হবে। ঈদের সময় মহাসড়কে যানবাহন চলাচল নির্বিঘ্ন রাখতে টোলপ্লাজাগুলোতে সব বুথ চালু রাখা হবে। কঠোরভাবে ২২টি জাতীয় মহাসড়কে থ্রি হুইলার অটোরিকশা এবং সব শ্রেণির অযান্ত্রিক যানবাহন চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে।
সভায় সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান, বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান মো. মশিয়ার রহমানসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক, হাইওয়ে পুলিশ, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, পরিবহন মালিক-শ্রমিক, ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির নেতা এবং সংশ্লিষ্ট অংশীজনরা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ..



/* ]]> */