সুশিক্ষা

‘উন্নয়নের জন্য থিয়েটার’ এবং ‘বিটা সংস্কৃতি ও উন্নয়ন কেন্দ্র’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) নাট্যকলা বিভাগের অতিথি শিক্ষক ও মঞ্চনাট্য নির্দেশক মোস্তফা কামাল যাত্রার আমন্ত্রণে সম্প্রতি ঘুরে এলাম চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলা থেকে। প্রীতিলতার জন্মস্থান-খ্যাত এ পটিয়া। গন্তব্য ছিল নয়াহাটের মেহের আঁটি গ্রামের ‘বিটা সংস্কৃতি ও উন্নয়ন কেন্দ্র।’ বর্তমানে ‘বিটা কালচারাল অ্যান্ড কমিউনিকেশন ট্রাস্ট (বিসিসিটি)’ নামে পরিচিত। ‘বিটা ট্রেনিং সেন্টার’ নামেও এটি পরিচিত।
একজন প্রিয় মানুষের কাছ থেকে এ ট্রেনিং সেন্টারের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও কুয়াশাচ্ছন্ন পুকুরঘাটের শানবাঁধানো সিঁড়ির গল্প শুনে তা দেখার আগ্রহ থেকেই মূলত যাত্রার আমন্ত্রণ ফেলতে পারিনি। এখানে দুই দিন ধরে অবস্থান করছিল চবির নাট্যকলা বিভাগের মাস্টার্স ফাইনাল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। তাদের সঙ্গে ছিলেন চবি নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. কুন্তল বড়–য়া, সহকারী অধ্যাপক অসীম দাশ, নাট্যজন মোস্তফা কামাল যাত্রা, বিটার প্রশিক্ষক ও নাট্যকর্মী বাপ্পা চৌধুরী, ভারতের রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হক জিহাদ প্রমুখ।
ট্রেনিং সেন্টারে শিক্ষার্থীদের অবস্থান ছিল ১১ থেকে ১৩ মার্চ। আমার আমন্ত্রণ ছিল শেষ দিনের জন্য তথা ১৩ মার্চ বুধবার। ওই দিন সকাল সাড়ে ৭টায় চকবাজার থেকে যাত্রা করি। রাহাত্তার পুল ও নতুন ব্রিজ হয়ে বাসযোগে পটিয়ার নয়াহাটে পৌঁছাই। এখান থেকে রিকশায় বিসিসিটিতে প্রবেশ করি। দোতলা ভবনের দ্বিতীয় তলার যে রুমে মোস্তফা কামাল যাত্রার অবস্থান, সেখানে আমার রিপোর্টিং ছিল।
প্রথমে বিসিসিটি সম্পর্কে বলি। এখানে তিন বছর ধরে চবির নাট্যকলা বিভাগের মাস্টার্স ফাইনাল ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মাঠ পরিদর্শনের জন্য আনা হয়। উদ্দেশ্য থিয়েটার ফর ডেভেলপমেন্ট (টিএফডি) বা উন্নয়নের জন্য থিয়েটার সম্পর্কে
হাতে-কলমে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা অর্জন। বিটার কর্মী আবির মণ্ডল পুরো বিসিসিটি ঘুরিয়ে দেখান। এখানে রয়েছে টিএফডি কোর্স সেন্টার, গ্রন্থাগার, কালচারাল মডালিটিজ, ফোক মিউজিক্যাল এক্সিবিউশন রুম, মুক্তমঞ্চ, চিলড্রেন স্পেস প্রভৃতি। রয়েছে ডরমিটরি ও ডাইনিং সুবিধা।
প্রথম দিন ১১ মার্চ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় শুরু হয় পরিচিতি পর্ব। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন অধ্যাপক ড. কুন্তল বড়–য়া। পরে বাপ্পা চৌধুরীর নেতৃত্বে বিসিসিটি কমপাউন্ড পরিদর্শন করি। পর্যায়ক্রমে বিকাল ৩টা পর্যন্ত বিটা ট্রেনিং রুমে শিক্ষার্থীরা নানা প্রশিক্ষণে অংশ নেয়। ট্রেনিংয়ের বিষয়বস্তু ছিল আন্ডারস্ট্যান্ডিং টিএফডি ও বিটা অ্যাপ্রোচ, ডেভেলপমেন্ট পার্টনার অ্যান্ড ওয়ার্ক অ্যাপ্রোসেজ, কালচার অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট। ট্রেনিং পরিচালনা করেন বাপ্পা চৌধুরী ও চবি নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক মো. মামুনুল হক। বিসিসিটি থিয়েটার রুমে অনুষ্ঠিত হয় ডেভেলপমেন্ট থিয়েটার গেইম ও ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ। বিকাল ৪টা থেকে বিটা ট্রেনিং রুমে শুরু হয় ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশন (টিএফডি)। এতে প্রশিক্ষক হিসেবে যোগ দেন মোস্তফা কামাল। ট্রেনিংয়ের বিষয়বস্তু ছিল ফ্যাসিলিটেশন, র‌্যাপট, অ্যাটিচুড, লিসেনিং, কোয়েশ্চনিং, অবজারভিং সাইলেন্ট থিয়েটার, প্যারাপজিং, গেট কিপিং, ট্রাঅ্যাঙ্গুলেশন ও গ্রুপ টাস্ক।
দ্বিতীয় দিন ১২ মার্চ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত স্থানীয় অধিবাসী বাবলা দাশের নেতৃত্বে শিক্ষার্থীদের নেওয়া হয় মাঠভ্রমণে (স্থানীয় গ্রামে)। বেলা আড়াইটা থেকে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত বিটার ট্রেনিং রুমে অনুষ্ঠিত হয় মামুনুল হক চৌধুরী, বাপ্পা চৌধুরী ও মোস্তফা কামাল যাত্রার পরিচালনায় মাঠভ্রমণের অভিজ্ঞতা বিশ্লেষণ।
শেষ দিন সকালে অ্যাপ্লাইড থিয়েটারের ওপর প্রশিক্ষণ পরিচালনা করেন রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হক জিহাদ। ওইদিন দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীরা সমাজসচেতনতামূলক তিনটি নাটকের মহড়া করে। এখান থেকে মাদকদ্রব্যের প্রভাব সম্পর্কিত একটি নাটক বিকাল ৫টায় স্থানীয় গ্রামে পরিবেশন করা হয়। রাত ৮টায় বিটার ট্রেনিং রুমে ক্লোজিং সেশন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক অসীম দাশ, কোর্স টিচার মোস্তাফা কামাল যাত্রা, অধ্যাপক কুন্তল বড়–য়া ও মাহমুদুল হক জিহাদ।
পরদিন সকাল সাড়ে ৬টায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাসযোগে বিটা ট্রেনিং সেন্টার থেকে চট্টগ্রাম শহরের উদ্দেশে যাত্রা করি আমরা। আমন্ত্রণ পেলে আগামী বছর আবারও একই সময়ে বিটা সংস্কৃতি ও উন্নয়ন কেন্দ্রে যাওয়ার ইচ্ছা রয়েছে।

মোহাম্মদ আলী
সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মী সদস্য: নাট্যাধার
সদস্য: ত্রিতরঙ্গ আবৃত্তি দল

সর্বশেষ..