উভয় বাজারে সূচক ও লেনদেনের পতন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের পতন দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। তিন সূচকের মধ্যে প্রধান সূচকসহ দুটি সূচক কমেছে আর বেড়েছে বাকি একটির। গতকাল বৃহস্পতিবার সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারদর। তবে টাকার অঙ্কে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে। দিন শেষে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৮৫২ কোটি ৯৭ লাখ ৫৮ হাজার টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ২৬২ কোটি ৫৯ লাখ টাকা কম। অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) সব সূচক কমার সঙ্গে কমেলে লেনদেনও।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ২০ দশমিক ৩৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৮ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ৩৫৮ দশমিক ৯১ পয়েন্টে অবস্থান করে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক দশমিক ৩৮ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য তিন শতাংশ বেড়ে এক হাজার ২৬৭ দশমিক ৩৮ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস৩০ সূচক আট দশমিক ৫৬ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৫ শতাংশ কমে এক হাজার ৯০৬ দশমিক ৭৭ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৮৬ হাজার ৭৭৩ কোটি ৩৫ লাখ ৮৭ হাজার টাকা। ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ৮৫২ কোটি ৯৭ লাখ ৫৮ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন ছিল এক হাজার ১১৫ কোটি ২৯ লাখ ৭৯ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ২৬২ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এদিন ১৮ কোটি ৬৫ লাখ ৯৮৯টি শেয়ার এক লাখ ৬৯ হাজার ৩১ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯১টির, কমেছে ২২২টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৫টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড। ওইদিন ৪৩ কোটি ৬৩ লাখ ৯৮ হাজার টাকায় কোম্পানিটির ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৭টি শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর বেড়েছে ১৮ টাকা ৮০ পয়সা। এরপরের অবস্থানগুলোতে ছিল ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, কেডিএস এক্সেসরিসেস লিমিটেড, বিবিএস কেব্লস লিমিটেড, মুন্নু সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার লিমিটেড, বসুন্ধরা পেপার মিলস লিমিটেড, কুইন সাউথ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড ও প্যানিনসুলা চিটাগং।
ডিএসই গতকাল দর বাড়ার শীর্ষে উঠে এসেছে কেডিএস এক্সেসরিসেস লিমিটেড। প্রতিটি শেয়ারদর বেড়েছে ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ। ওইদিন শেয়ারটি সর্বশেষ ৮৩ টাকা ৮০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। এদিন কোম্পানিটি এক হাজার ৪০৬ বারে ৩০ লাখ ১৭ হাজার ৫২৬টি শেয়ার লেনদেন করে। যার বাজারদর ২৫ কোটি ১৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা।
গেইনারের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড। কোম্পানিটির দর বেড়েছে ১৮ টাকা ৮০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ। কোম্পানিটি সর্বশেষ ২০৭ টাকা ৫০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। কোম্পানিটি চার হাজার ৬৮ বারে ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৭টি শেয়ার লেনদেন করে। যার বাজারদর ৪৩ কোটি ৬৩ লাখ ৯৮ হাজার টাকা। তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলো হলো আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, এপেক্স স্পিনিং মিলস, এইচ আর টেক্সটাইল, ইউনাইটেড পাওয়ার, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, সিনো বাংলা, বিবিএস কেব্লস লিমিটেড ও পেনিনসুলা চিটাগং।
দরপতনের শীর্ষে রয়েছে জিকিউ বলপেন লিমিটেড। কোম্পানিটির শেয়ারের দর কমেছে আট দশমিক ৭৪ শতাংশ। লুজারের দ্বিতীয় স্থানে থাকা জনতা ইন্স্যুরেন্স সাত দশমিক ৬৩ শতাংশ দর কমেছে। সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডর দর কমেছে সাত দশমিক ২৮ শতাংশ, ইসলামী ইন্স্যুরেন্স বাংলাদেশ লিমিটেডের দর কমেছে ছয় দশমিক ৭১ শতাংশ এবং লিবরা ইনফিউশন লিমিটেডের পাঁচ দশমিক ৮০ শতাংশ দর কমেছে।
অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৭৪ দশমিক শূন্য আট পয়েন্ট কমে ৯ হাজার ৯৯৪ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১২৩ দশমিক ৬৮ পয়েন্ট কমে ১৬ হাজার ৫১৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৫৯টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬৪টির। কমেছে ১৮১টির। অপরিবর্তিত ছিল ১৪টির দর।
সিএসইতে এদিন ৪৮ কোটি ১৭ লাখ ১০ হাজার ২৫৮ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয় সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড। কোম্পানিটির আট কোটি ২৬ লাখ ৯১ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এছাড়া কেডিএস এক্সেসরিসের দুই কোটি ৪২ লাখ ৯৯ হাজার, পেনিনসুলা চিটাগংয়ের দুই কোটি পাঁচ লাখ ও শাশা ডেনিমসের এক কোটি ৪২ লাখ ৮২ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।