উড়োজাহাজের টিকিটে বাড়তি দাম কেন?

গতকালের শেয়ার বিজের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ঈদ ঘিরে বাস ও ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু না হলেও উড়োজাহাজের ৯০ শতাংশ টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে এরই মধ্যে। কিছু অবশিষ্ট থাকলেও সেগুলো বিক্রি হচ্ছে নিয়মিত ভাড়ার চেয়ে তিন গুণ দামে। বাজারের নিয়ম বিবেচনায় রাখলে চাহিদা বাড়ার সঙ্গে দাম বৃদ্ধিকে অস্বাভাবিক বলা যায় না। কিন্তু এ যুক্তিতে ঈদ ঘিরে অন্য সময়ের তুলনায় তিন গুণ বেশি দামে টিকিট বিক্রির বিষয়টিকে কি স্বাভাবিক বলা যায়? শুধু ঈদ নয়, অন্য সময়ও টিকিটের দাম ইচ্ছামতো নির্ধারণের অভিযোগ রয়েছে এ খাতে ব্যবসারত কোনো কোনোটির বিরুদ্ধে। এটি শৃঙ্খলাহীনতার উদাহরণ বলা যায়। ঈদ ঘিরে বাস, ট্রেন ও লঞ্চের মতো গণপরিবহনে বাড়তি ভাড়া আদায়ের উদাহরণ কম নেই। সেটি নিয়ন্ত্রণে সরকারও নেয় নানা পদক্ষেপ। তবে ঈদ ঘিরে উড়োজাহাজের টিকিটের দাম স্থিতিশীল রাখতে নিকট অতীতে পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি সরকারকে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমরা চাইব, এদিকে দৃষ্টি দেবে কর্তৃপক্ষ।
উড়োজাহাজের টিকিট অনলাইনে কেনার সুবিধা চালু হয়েছে অনেক আগে। এ অবস্থায় বিশেষত উড়োজাহাজের মতো পরিবহনের টিকিট বুকিং ও ক্রয়-বিক্রয় নিয়ন্ত্রণে রাখা কিন্তু মুশকিল। খাত সংশ্লিষ্টদেরও মত, ঈদে গ্রামে ফেরায় ভোগান্তি কমাতে ফেব্রুয়ারি থেকেই উভয় ট্রিপের টিকিট সংগ্রহ শুরু করেছেন অনেকে। এসব টিকিটের কত শতাংশ কালোবাজারির নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে, তা অবশ্য নির্ণয় করা কঠিন। প্রকৃত যাত্রীরাই যদি এগুলো সংগ্রহ করে থাকেন, তবে কিছু বলার নেই। তবে কালোবাজারির উদ্দেশ্যে যাতে কেউ ইচ্ছামতো টিকিট কিনতে না পারে, সেজন্য সংশ্লিষ্ট
কোম্পানিগুলোকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে প্রযুক্তিগতভাবেই। বিদ্যমান টিকিটগুলো যাতে নিয়মিত দরেই বিক্রি হয়Ñপদক্ষেপ নিতে হবে সে ব্যাপারেও। এ লক্ষ্যে নিয়ন্ত্রক সংস্থার জোর তদারকিও দেখতে চাইব আমরা।
অনেকেরই জানা, অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান ভাড়া, টিকিট বাতিল ও অতিরিক্ত পণ্য বহনের চার্জ নির্ধারণে কোনো নীতিমালা নেই। এটি থাকলে কোনো উড়োজাহাজ পরিবহন সংস্থা চাহিদা বৃদ্ধির যুক্তিতে টিকিটের দাম বাড়াতে পারত না। এ-সংক্রান্ত নীতিমালা তাই দ্রুত প্রণয়ন করা দরকার।
কিছুদিন আগে এ ইস্যুতে একটি রুলও জারি করেছেন উচ্চ আদালত। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের জবাবও দিতে বলা হয়েছে। প্রত্যাশা থাকবে, রুলের জবাব প্রদানের প্রস্তুতির পাশাপাশি নীতিমালাটি প্রণয়নের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপও নেবেন তারা। আমরা চাইব, শুধু ঈদযাত্রা নয় নীতিমালাটি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে আকাশপথে পরিবহনকেন্দ্রিক সব জটিলতার অবসান হোক। উড়োজাহাজের অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন রুটে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনে প্রতিষ্ঠা পাক শৃঙ্খলা।