কোম্পানি সংবাদ

একীভূত হয়েছে বহুজাতিক লিন্ডে এজি ও প্রাক্সএয়ার ইনকরপোরেশন

নিজস্ব প্রতিবেদক: জার্মানিভিত্তিক বহুজাতিক কোম্পানি লিন্ডে বিডির মূল কোম্পানি লিন্ডে এজি এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্সএয়ার ইনকরপোরেশন তাদের ব্যবসা একীভূত করেছে। বাধ্যতামূলক ব্যবসা সংমিশ্রণ চুক্তি অনুসারে, জার্মানির লিন্ডে এজির ব্যবসা যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রাক্সএয়ারের সঙ্গে একীভূত করার চুক্তিটি যথাযথ নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন সাপেক্ষে ৩১ অক্টোবর, ২০১৮ থেকে কার্যকর হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্রানুসারে, লিন্ডে এজি ও প্রাক্সএয়ারের ব্যবসা একীভূত করার খবরটি গত ৫ জুন, ২০১৭ সালে ডিএসইর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়। সে সময় জানা যায়, লিন্ডে এজি, জার্মানি ১ জুন, ২০১৭ তারিখে প্রাক্সএয়ার ইনকপোরেশনের সঙ্গে ব্যবসায়িক সমন্বয় চুক্তিটি আইনগতভাবে স্বাক্ষর করেছে। ব্যবসা একীভূত করার সব শর্তাবলি দুই কোম্পানির মধ্যে সমানভাবে প্রযোজ্য হবে। এ ব্যবসা সমন্বয়ের কারণে লিন্ডে বাংলাদেশ জোর দিয়ে জানায়, বাংলাদেশে বর্তমান ব্যবসায়ে কোনো পরিবর্তনের পরিকল্পনা তাদের এ মুহূর্তে নেই। পুরো প্রক্রিয়াটি বাস্তবায়নের জন্য ইউএস ফেডারেল ট্রেড কমিশন গত ১ মার্চ নির্দেশনা জারি করেছে। গ্যাস ব্যবসায়ে পথিকৃত বহুজাতিক লিন্ডে বাংলাদেশ কোম্পানিটি ৫০ বছরের বেশি সময় ধরে বাংলাদেশে ব্যবসা করে আসছে। তাদের প্রধান পণ্য হচ্ছে তরল ও গ্যাসীয় অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, আর্গন, এসিটিলিন, কার্বন-ডাই অক্সাইড, শুকনো আইস, রেফ্রিজারেন্ট গ্যাস, ল্যাম্প গ্যাস, মেডিক্যাল অক্সিজেন, নাইট্রাস অক্সাইড, চিকিৎসা সরঞ্জাম ও আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র।
এদিকে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের লিন্ডে বিডির শেয়ারদর সর্বশেষ কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ১৫ টাকা ৯০ পয়সা বা এক দশমিক ২৮ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৪৩ টাকায়। সর্বশেষ লেনদেন হয় এক হাজার ২৫৯ টাকায়। গতকাল শেয়ারটির দর এক হাজার ২৭৯ টাকা থেকে এক হাজার ২৩৪ টাকায় ওঠানামা করে। এদিন কোম্পানিটির ১২ হাজার ২১টি শেয়ার ৭০০ বার হাতবদল হয়। যার মোট মূল্য এক কোটি ৪৯ লাখ ৯৪ হাজার টাকা। গত এক বছরে শেয়ারটির সর্বোচ্চ দর ছিল এক হাজার ৩৮৪ টাকা ও সর্বনি¤œ দর এক হাজার সাত টাকা ৩০ পয়সা।
এছাড়া সম্প্রতি কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ৩৭৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়। ওই বছর কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৬৫ টাকা ৯৬ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়ায় ২৯৩ টাকা ৯০ পয়সায়। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ৬২ টাকা ৬০ পয়সা এবং ২৪১ টাকা ৫৪ পয়সা। কোম্পানির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আগামী ৩০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে। এজিএমের স্থান ও সময় পরে জানানো হবে। এ জন্য রেকর্ড ডেট আগামী ২৫ মার্চ।
সর্বশেষ অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, কোম্পানির মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) ২১ দশমিক শূন্য আট। নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, ১৯ দশমিক ৮৬।
কোম্পানিটি সর্বশেষ ২০১৭ সালে শেয়ারহোল্ডারদের ৩৪০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ হিসেবে দিয়েছে। ২০১৩ সাল থেকে ২০১৬ পর্যন্ত প্রতি বছর কোম্পানিটি ৩১০ শতাংশ হারে নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। ২০১৬ সালে কোম্পানির ইপিএস ছিল ৫৭ টাকা ৯০ পয়সা ও শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয় ২০ টাকা ৯২ পয়সা। ওই বছর মুনাফা হয়েছে ৮৮ কোটি ১১ লাখ টাকা।
১৯৯৬ সালে পুঁজিবাজারে আসা এ ক্যাটেগরির কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ২০ কোটি টাকা ও পরিশোধিত মূলধন ১৫ কোটি ২১ লাখ ৮০ হাজার টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ার সংখ্যা এক কোটি ৫২ লাখ ১৮ হাজার ২৮০টি। রিজার্ভে আছে ৩৫১ কোটি ৩৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা। মোট শেয়ারের মধ্যে ৬০ শতাংশ উদ্যোক্তা/পরিচালকদের হাতে, ২৯ দশমিক ৬০ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক, ১০ দশমিক ৪০ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

সর্বশেষ..