এক বছরে যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র রফতানি বেড়েছে ৩৩ শতাংশ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র রফতানি গত এক বছরে বেড়েছে ৩৩ শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের ডিফেন্স সিকিউরিটি কোঅপারেশন এজেন্সির পরিচালক লেফটেন্যান্ট জেনারেল চার্লস হুপার গত মঙ্গলবার জানিয়েছে, গত বছর পাঁচ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের অস্ত্র রফতানি করেছে তারা। ৩০ সেপ্টেম্বর মার্কিন অর্থবছর শেষ হয়েছে। আগের বছর দেশটি সারা বিশ্বে চার হাজার কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি করেছিল। খবর রয়টার্স।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন অস্ত্র রফতানি বাড়ানোর বিষয়ে গত এপ্রিল থেকে বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে এবং তারই আওতায় অস্ত্র রফতানি অনেক বেড়ে গেছে। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তিনি মিত্রদের ওপর অস্ত্র কেনার বিষয়ে চাপ সৃষ্টি করেছেন এবং নিরাপত্তা দেওয়ার বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্রকে অর্থ পরিশোধ করার ওপর জোর দিয়েছেন। পাশাপাশি কেউ রাশিয়া থেকে অস্ত্র কেনার চুক্তি করতে গেলেই সে দেশের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিচ্ছেন। ট্রাম্পের এ কৌশলও অস্ত্র রফতানি বাড়াতে সাহায্য করেছে বলে মনে করা হচ্ছে।
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মার্কিন অস্ত্র বিক্রি হলেও তার অর্ধেকই যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের আরব দেশগুলোতে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র কিনছে সৌদি আরব। সৌদি আরবের অস্ত্র আমদানি বেড়েছে ২২৫ শতাংশ।
অতীতের ধারাবাহিকতায় বিগত পাঁচ বছরেও অস্ত্র রফতানিতে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। পাশাপাশি অতীতের থেকে রফতানির পরিমাণ বাড়িয়েছে তারা। ২০১৩-২০১৭ মেয়াদে বিশ্বব্যাপী মোট রফতানিকৃত অস্ত্রের এক তৃতীয়াংশেরও বেশি যুক্তরাষ্ট্রের। আর পূর্ববর্তী মেয়াদের তুলনায় তাদের অস্ত্র রফতানি বৃদ্ধির পরিমাণ ২৫ শতাংশ। অস্ত্র বিক্রির পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বিগত ওবামা প্রশাসনের ধারাবাহিকতায় অস্ত্র রফতানিকে আরও গতিশীল করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরিবর্তন এসেছেন বেচাবিক্রির ধরনেও। সব মিলে অস্ত্র রফতানিতে তাদের চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো কেউ নেই আপাতত। ভবিষ্যতেও যুক্তরাষ্ট্র বহুদিন রফতানিতে এ অপ্রতিরোধ্য অবস্থান ধরে রাখতে সক্ষম হবে বলে আভাস দিয়েছেন বিশ্লেষকরা।