কঠিন চ্যালেঞ্জ জিততে তৈরি মিথুন

ক্রীড়া প্রতিবেদক: অনেকদিন ধরেই লোয়ার মিডল অর্ডারে একজন কার্যকর ব্যাটসম্যান খুঁজছে বাংলাদেশ। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজনকে দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছে বিসিবি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কেউ পারেনি দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটির দাবি মেটাতে। তবে আসন্ন এশিয়া কাপে সাত-আট নম্বর পজিশনে ভালো কিছু পেতে আস্থা রেখেছেন মোহাম্মদ মিথুনের ওপর। ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান নিজেও জানেন চ্যালেঞ্জটা সহজ নয়। তবে সুযোগটা কিছুতেই হাতছাড়া করতে চান না তিনি। এজন্য কঠোর পরিশ্রম করছেন। গতকাল মিরপুরে সংবাদমাধ্যমে তিনি বললেন, তৈরি আমি। জিততে চাই কঠিন চ্যালেঞ্জ।
সাত-আট নম্বর ছাড়াও বাংলাদেশের দলের ব্যাটিং পজিশনের তিন নম্বর জায়গা নিয়েও এতদিন চিন্তা ছিল টাইগার শিবিরে। তবে ওয়ানডেতে আপাতত তিনের সমাধান করে দিয়েছেন সাকিব আল হাসান। এবার নির্বাচকরা আশা করছেন লোয়ার মিডল অর্ডারের সমস্যার সমাধান করবেন মিথুন।
মিথুন মূলত একজন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। গত কয়েক মাস ধরে এ ডানহাতি খেলছেন পাঁচে। তবে এশিয়া কাপে তাকে দেখা যাবে সাত কিংবা আট নম্বর পজিশনে। এরই মধ্যে নির্বাচকরা তাকে সে ইঙ্গিত দিয়েছেন। কিন্তু তাতে কি? ব্যাপারটি শোনার পর খুলনার এ ক্রিকেটার দমে যাবেন? মোটেও না। বরং হঠাৎ পাওয়া সুযোগটাকে লুফে নিতে চাইছেন এ ডানহাতি, ‘ক্যারিয়ারের প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত আমি যা খেলেছি, ইতিবাচক খেলার চেষ্টা করেছি সবসময়। এমনিতেই আমি উইকেটে নেমে খুব বেশি সময় নেই না সেট হতে। প্রথম থেকেই চেষ্টা করি রানের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে, স্ট্রাইক রোটেট করতে। সুতরাং ছয় কিংবা সাত নম্বরে কিন্তু সেটাই গুরুত্বপূর্ণ যে নেমেই স্ট্রাইক রোটেট করতে হবে।’
মিথুন সাধারণত মেরে খেলতে ভালোবাসেন। তাই যে পজিশনেই ব্যাটিংয়ের সুযোগ আসুক পরিস্থিতির দাবি অনুযায়ী খেলবেন তিনি। গতকাল মিরপুরে অনুশীলন শেষে এ ডানহাতি যেমনটি বলেন, ‘ছোটবেলা থেকে এভাবেই খেলে অভ্যস্ত। তাই খুব বেশি চিন্তা করার কিছু নেই। হয়তো আগে নতুন বলে খেলতাম বা ওপরে অনেক সময় নিয়ে খেলতাম, এখন সময় কম পাব। তবে ছয় কিংবা সাতে খেললে ১১০-১১৫ বা ১২০-১৩০ স্ট্রাইক রেটে খেলতে হবে। একেক সময় পরিস্থিতি একেকরকম দাবি করবে। এই ধরনের স্ট্রাইক রেটে খেললে আমার মনে হয় যথেষ্ট ভালো হবে।’
যে কোনো মানুষেরই একটা নির্দিষ্ট লক্ষ্য থাকে। কিন্তু সবসময় সেটি পূরণ নাও হতে পারে। মিথুনও তেমনি রক্ত-মাংসে গড়া একজন মানুষ। তবে দলের প্রয়োজনে সর্বোচ্চ চেষ্টাটাই করবেন তিনি। এ নিয়ে ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান বলেন, ‘দলের যখন কিছু প্রয়োজন হয়, তখন আসলে নিজের পছন্দকে ফোকাস করার কিছু নেই। প্রতিটি মানুষেরই জীবনে লক্ষ্য থাকে। তার সবই যে পূরণ হবে, এমন নয়। দলের স্বার্থে সব জায়গার জন্যই প্রস্তুত থাকতে হবে। যেখানেই আমি খেলব, চেষ্টা করব শতভাগ দেওয়ার এবং চাইব আমাকে দিয়ে যেন দল উপকৃত হয়।’
সাম্প্রতিক সময়ে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছেন মিথুন। গেল আয়ারল্যান্ড সফরে রঙিন পোশাকে তার ব্যাটে আগুনের ফুলকি ঝরেছিল। আসন্ন এশিয়া কাপে দলের প্রয়োজনে সেই রূপে আবারও আবির্ভূত হতে চান তিনি। শেষ পর্যন্ত যদি এ ডানহাতি সেটা পারেন, তবে তা হবে বাংলাদেশ দলের জন্য বড় পাওয়া।