করপোরেট কর ১০ শতাংশ করার দাবি বিজিএমইএ’র

নিজস্ব প্রতিবেদক: তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ মনে করছে, পোশাকশিল্পে করপোরেট কর বাড়লে বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত হবে। গতকাল শনিবার বিজিএমইএ ভবনে বাজেট-পরবর্তী এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান পোশাক খাতে করপোরেট করহার ১০ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবি জানান।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আগামী (২০১৮-১৯) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে পোশাক খাতে করপোরেট কর ১২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা এবং সবুজ সনদধারী কারখানাগুলোর ক্ষেত্রে তা ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১২ শতাংশ করার প্রস্তাব করেন। সংবাদ সম্মেলনে সিদ্দিকুর বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আমরা করপোরেট করহার কমানোর অনুরোধ করেছি।
তিনি বলেন, বাজেটে ব্যাংক খাতে দুই দশমিক পাঁচ শতাংশ করপোরেট কর কমানো হয়েছে। কিন্ত উৎপাদনমুখী পোশাকশিল্পে তা দুই-তিন শতাংশ বাড়ানো হয়েছে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এতে পোশাকশিল্পের উদ্যোক্তারা নিরুৎসাহিত হবেন। পোশাকশিল্পে করপোরেট করহার ১০ শতাংশে কমিয়ে আনতে সরকারের ‘উচ্চপর্যায়ে’ আলোচনা করবেন বলে জানান বিজিএমইএ সভাপতি।
প্রস্তাবিত বাজেটে পোশাক খাতের উৎসে করের বিষয়ে কিছু বলা না হলেও আয়কর অধ্যাদেশ অনুযায়ী তা এক শতাংশ হারে নির্ধারিত হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। সিদ্দিকুর চলতি বাজেটে পোশাক খাতে উৎসে কর সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের দাবি জানান।
তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিকে পোশাকখাতের জন্য সংকটময় পরিস্থিতি বিবেচনায় পোশাক রফতানির ওপর উৎসে কর আগামী তিন বছরের জন্য রহিত করা হোক। রফতানি খাতে স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত পণ্যে ভ্যাট মওকুফ করার দাবি করেছে বিজিএমইএ।
সিদ্দিকুর বলেন, রফতানিসংশ্লিষ্ট স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত সব পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে ভ্যাট মওকুফসহ রিটার্ন দাখিল করা থেকে অব্যাহতি প্রদান করার জন্য আমরা অনুরোধ জানিয়েছিলাম। এছাড়াও বিগত পাঁচ-ছয় বছরের যে ভ্যাট দাবি করা হচ্ছে, তাও মওকুফ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলাম। এ ব্যাপারে ঘোষিত বাজেটে কোনো দিকনির্দেশনা নেই।