কাঁচাবাজারের খবর খারাপ নয়

সপ্তাহ শেষে কাঁচাবাজারের খবর প্রকাশিত হয় আমাদের সংবাদপত্রগুলোয়। তাতে নিত্যপণ্যের দামের খবর মোটামুটি পাওয়া যায়। দাম বৃদ্ধির পাশাপাশি হ্রাসের খবরেও আজকাল আগ্রহ দেখা যাচ্ছে প্রতিবেদকদের মধ্যে। পণ্যবাজার স্থিতিশীল থাকার খবরও ভালোই দেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে বিজনেস ডেইলিগুলো স্বভাবতই এগিয়ে। সচেতন পাঠক এ পরিবর্তন নিশ্চয়ই লক্ষ করছেন। গতকালের শেয়ার বিজে রয়েছে এ ধারায় খবর দেওয়ার চেষ্টা। আমাদের প্রতিবেদক জানাচ্ছেন বিভিন্ন ধরনের চালের দামের খবর। মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্তরা যে ধরনের চাল কিনে থাকেন, সেগুলোর দাম এ সময়েও কিছুটা বেড়েছে। আমাদের প্রধান এ খাদ্যপণ্যটির বাজার এখন আর অশান্ত নয়, সে ইঙ্গিত রয়েছে প্রতিবেদনে। সৃষ্ট সংকট মোকাবিলায় এর মধ্যে কম চাল আমদানি হয়নি দেশে। ওইসব চালের দামের গতিপ্রকৃতি যে ভিন্ন, সেটাও প্রতিবেদন পড়লে বুঝতে পারা যায়। মোটা চালের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। এটা ইতোমধ্যে আরও কিছুটা কমে এলে যে দরিদ্রদের জন্য ভালো হতো, তা বলাই বাহুল্য। অতিদরিদ্রদের জন্য সরকারের বিশেষ খাদ্য সহায়তা কর্মসূচি রয়েছে। সেটি এ সময়ে কতটা কীভাবে চলমান, তা আমরা জানতে চাইব এ সুযোগে। তবে এটা মানতে হবে, সরকার চালের বাজার শান্ত রাখতে ব্যগ্র বিশেষত এ নির্বাচনের বছরে। এর উৎপাদন বাড়াতে বিশেষ প্রণোদনার খবরও দেওয়া হচ্ছে। আমরা আশা করব, ‘মূল্যস্ফীতির প্রত্যাশা’য় এরও কিছুটা ভূমিকা থাকবে। আমাদের প্রতিবেদক জানাচ্ছেন, সবজির দাম কমে কিছুটা স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে বাজার। কোন সবজির কী দাম, তার বিবরণ দেওয়া হয়েছে। বাজারে বাজারে দামের তফাত ঘটে নানা কারণে; তাই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়Ñকোন বাজার থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। পাইকারি আর খুচরা বাজারে দামের তফাত তো এদেশে বহুল আলোচিত। কৃষক পর্যায়, স্থানীয় বাজার ও শহর-বন্দরে একই পণ্যের দামের তফাতও কম আলোচিত নয়। বহুল আলোচিত মধ্যবর্তী হাত বদলকারীদের ভূমিকা। বলা হয়ে থাকে, অন্যের উৎপাদিত পণ্যে তারাই মুনাফা করে বেশি। এটাও বলতে হবে, মধ্যবর্তী বিক্রেতা ছাড়া পণ্যবাজার চিন্তা করা যায় না। সব দেশেই তাদের এ ভূমিকাটি রয়েছে। আমরা কেবল আশা করতে পারি, উৎপাদক ও ভোক্তার স্বার্থ দেখার বিষয়ে বাজার তদারককারীদের আগ্রহ বাড়বে। এতে নিত্যপণ্যের বাজারে একটা স্থিতিশীলতা আসবে বলেই মনে হয়। এজন্য উৎপাদন বৃদ্ধি একটি অপরিহার্য শর্ত। চাহিদা ও জোগানে ঘাটতি দূর হওয়া এবং আমদানিনির্ভরতা কমে আসা জরুরি। ডিম, দুধ, মাছ, মাংসের ক্ষেত্রে এটা অনেকটাই ঘটেছে বলে মনে করা হচ্ছে। আমাদের প্রতিবেদকও জানালেন, ফার্মের মুরগির ডিমের দাম হালিতে ১০ টাকা কমেছে। গোমাংসের দাম কমার লক্ষণও স্পষ্ট। বাজারে মাছের সরবরাহ ভালো বলে দাম অন্তত বাড়েনি। এ সময়ে মুরগির দাম স্থিতিশীল থাকাটাও গুরুত্বপূর্ণ। তবে দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসার পাশাপাশি ভারত থেকে কম দামে আমদানির পরও এর দাম সেভাবে কমছে কিনাÑখতিয়ে দেখা প্রয়োজন।