সুশিক্ষা

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এগুলোর মধ্যে শীর্ষ পর্যায়ে রয়েছে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ। বিস্তারিত তুলে ধরেছেন ডালিয়া আক্তার

কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহফুজুল ইসলাম বলেছেন, সমাজ চলার জন্য যে বাস্তবভিত্তিক জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা প্রয়োজন সেটি জ্ঞানী ও অভিজ্ঞদের কাছ থেকে আহরণ করে যাদের এটি প্রয়োজন, তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়াই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র লক্ষ্য। আমরা প্রায়োগিক ভিত্তিসম্পন্ন জ্ঞান বিতরণে সদা সচেষ্ট থাকি। যে জ্ঞানের মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে আমরা একে অপরকে সহযোগিতা করতে পারি।
বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ২০১০-এর আইন মেনে ১০১৬ সালে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়। রাজধানীর বনানীর ১১ নম্বর রোডের সি ব্লকে এর অবস্থান। আধুনিক ও খোলামেলা ১৫ তলা ভবনে এর কার্যক্রম চলছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস নেওয়া হয়েছে উত্তরার পূর্বাচল সিটিতে। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রয়েছে পর্যাপ্তসংখ্যক ক্লাসরুম, ল্যাব, কমনরুম, ক্যান্টিন প্রভৃতি।
কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে রয়েছে সমৃদ্ধ একটি লাইব্রেরি। এর সংগ্রহে রয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার বই। নগরীর প্রাণকেন্দ্রে হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার যোগাযোগব্যবস্থাও খুব ভালো। কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে বর্তমান ছাত্রছাত্রী রয়েছেন এক হাজার ২৩৮ জন। এর মধ্যে ছাত্রী ২১ শতাংশ ও ৭৯ শতাংশ ছাত্র, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ১৩ শতাংশ। ১০০ শতাংশ স্কলার পেয়েছে এখন পর্যন্ত ১৭ জন। সব শিক্ষার্থীর ৪০ শতাংশকে স্কলারশিপ দেওয়া হয়।
কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো চালু করেছে টিউটরিয়াল বেজড শিক্ষাব্যবস্থা, যা খুবই সময়োপযোগী ও প্রয়োজনীয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরো শিক্ষাপদ্ধতিই সাজানো হয়েছে আন্তর্জাতিক মানের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে। ফলে আন্তর্জাতিক মানের ছাত্রছাত্রী তৈরি হচ্ছে।
কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ছাত্রদের এক্সট্রা কারিকুলাম অ্যাক্টিভিটির জন্য ১২টি ক্লাব রয়েছে। সব ক্লাবের কার্যক্রম পরিচালনা ও মনিটর করার জন্য রয়েছেন একজন করে পরামর্শক। প্রতিনিয়ত এসব ক্লাব কোনো না কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। ফলে ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দক্ষ হয়ে ওঠেন। সিইউবি রোবটিকস ক্লাব বিভিন্ন জাতীয়-আন্তর্জাতিক রোবোটিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে। সোশ্যাল সার্ভিস ক্লাব শীতবস্ত্র বিতরণসহ নানা সামাজিক কার্যক্রমে অংশ নেয়। রয়েছে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ক্লাব, সাংস্কৃতিক ক্লাব, ল’ ক্লাব, বিজনেস ক্লাব, ইংলিশ ক্লাব, স্পোর্টস ক্লাব, মিডিয়া ক্লাব প্রভৃতি।

বাংলাদেশে প্রথম শিপিং অ্যান্ড মেরিটাইমস কোর্স
বাংলাদেশে এখন শিপিং ইন্ডাস্ট্রি বড় হচ্ছে। সরকার বিভিন্ন পোর্ট তৈরি করছে।
প্রথমত, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে জাহাজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। দ্বিতীয়ত, সাগরের একটি বিশাল অংশ বাংলাদেশের, আর এ অংশে যে সম্পদ আছে তারও সুষ্ঠু অনুসন্ধান ও বণ্টন দরকার।
বিষয়গুলো মাথায় রেখে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো শিপিং অ্যান্ড মেরিটাইমস নামে সময়োপযোগী একটি কোর্স চালু করছে। এতে জাহাজ তৈরির ব্যাপারটিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়নি; কিন্তু নটিক্যাল সায়েন্স, বিভিন্ন প্রতিকূলতায় জাহাজ চালনা, জাহাজ মেইনটেন্যান্স ও রিপেয়ারের পদ্ধতিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পুরো ব্যাপারটিকেই একত্রে দেওয়া ও গুণগত মানসম্পন্ন ক্যাপটেন তৈরির কথা মাথায় রেখে এ কোর্সটি খোলা হয়েছে।
বর্তমানে বিভিন্ন দেশে ক্যাপটেন হওয়ার জন্য গ্র্যাজুয়েশনকে বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। এসব বিষয় বিবেচনা করে বলা যায় শিপ ইন্ডাস্ট্রির ডেভেলপ ও বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে এ বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। কারণ, বিশ্বে ক্যাপটেনদের যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। এ ধরনের গ্র্যাজুয়েট তৈরি করা এখন খুবই চ্যালেঞ্জিং ও সময়ের দাবি। এ পরিপ্রেক্ষিতেই শিপিং অ্যান্ড মেরিটাইমস কোর্স চালু করেছে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।
সময়োপযোগী এমন একটি কোর্স পরিচালনা করার জন্য কোর্স ফিও তুলনামূলক কম রাখা হয়েছে। চার বছরের গ্র্যাজুয়েশনে প্রয়োজন হবে সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা। এখানে শিক্ষাদান করা হবে ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অনুসরণ করে। এ কোর্সের প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসের জন্য বেশ কয়েকটি শিপইয়ার্ডের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে। মেরিনার সোসাইটির সভাপতিসহ এখানকার অনেক কর্মকর্তা কাজ করছেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটির সঙ্গে।

স্কুল অ্যান্ড ডিপার্টমেন্ট স্কুল অ্যান্ড ডিপার্টমেন্ট রয়েছে তিনটি।

স্কুল অব বিজনেস
এর মধ্যে রয়েছে আন্ডার গ্র্যাজুয়েট অ্যান্ড গ্রাজুয়েট। বিবিএ, এমবিএ ও ইএমবিএ তিনটি কোর্সই কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ প্রদান করে থাকে।

স্কুল অব সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং
এ ডিপার্টমেন্টে রয়েছে কম্পিউটার সায়েন্স, ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং, শিপিং অ্যান্ড মেরিটাইমসের ওপর আন্ডার গ্র্যাজুয়েশন।

স্কুল অব লিবারেল আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্স
এ ডিপার্টমেন্টে রয়েছে ফিল্ম ইন টিভি, ব্যাচেলর অব আর্টস ইন ইংলিশ, ব্যাচেলর অব ল’।
প্রফেসর উইলিয়াম এইচ ডেরেঞ্জার (ডিন স্কুল অব বিজনেস) বলেন, মানুষের সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্যে আমরা ব্যবসা করি। এসব সমস্যার মধ্যে রয়েছে আবাসন, যাতায়াত, যোগাযোগ, খাদ্য প্রভৃতি। কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশে আমরা ছাত্রদের সমস্যা সমাধানে হাতে-কলমে শিক্ষা দিয়ে থাকি।

সর্বশেষ..