ক্রেতার আগ্রহের শীর্ষে ব্যাংক ও বস্ত্র খাত

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল তৃতীয় দিনের মতো ব্যাংক খাতে আগ্রহ দেখা গেছে বিনিয়োগকারীদের। এ কারণে ৫০ শতাংশ কোম্পানির দরপতন সত্ত্বেও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচককে ইতিবাচক থাকতে দেখা গেছে। লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে। আসন্ন ঈদুল আজহার আগে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার বিক্রির প্রবণতা বাড়ছে। এছাড়া বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মধ্যেও বিক্রির প্রবণতা বেশি। তারা নতুন করে বিনিয়োগ করার তুলনায় শেয়ার বিক্রি করছেন বেশি। ডিএসইর তথ্যানুসারে জানা গেছে, গত জুলাই মাসে বিদেশিরা শেয়ার কিনেছেন প্রায় ৪১২ কোটি পাঁচ লাখ টাকার। এর বিপরীতে বিক্রি করেছেন ৪৪৪ কোটি ৭৫ লাখ টাকার। অর্থাৎ গত জুলাইয়ে বিদেশিদের মোট লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৮৫৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এর আগের মাস অর্থাৎ জুনে লেনদেন হয়েছিল এক হাজার ৯৯ কোটি টাকা। জুলাইয়ে বিদেশি লেনদেন কমেছে ২৪৩ কোটি টাকা। ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্যমান কমে যাওয়া ছাড়াও নির্বাচনের মুহূর্তে ঝুঁকি বা ঝামেলা এড়াতে তারা লেনদেন কমিয়ে দিচ্ছেন। গতকাল শেয়ার কেনার চাপ সবচেয়ে বেশি ছিল ব্যাংক খাতে। এরপর বস্ত্র খাতেও কেনার চাপ ছিল। বৃহৎ খাতগুলোতে বিক্রির চাপই বেশি ছিল।
গতকাল সবচেয়ে বেশি ২২ শতাংশ লেনদেন হয় বস্ত্র খাতে। এ খাতে লেনদেন হয় ১৪৯ কোটি টাকা। সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ ও সায়হাম টেক্সটাইল দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। এর মধ্যে সায়হাম টেক্সের ১৮ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। আমান কটনের ১৮ কোটি, প্যারামাউন্ট টেক্সের সাড়ে ১৭ কোটি ও সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের ১২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ২১ শতাংশ। এ খাতে মাত্র ৩৮ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। এ খাতের বিবিএস কেব্লস বাজারে নেতৃত্ব দেয়। কোম্পানিটির ৪২ কোটি টাকার লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে সাত টাকা ৩০ পয়সা। এছাড়া ওয়েস্টার্ন মেরিনের প্রায় ১৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। কোম্পানিটির রাইট শেয়ার ছাড়ার প্রস্তাব শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনের জন্য বিশেষ সাধারণ সভা আগামী ১০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য আগামী ১৪ আগস্ট রেকর্ড ডেট। এর আগে রোববার থেকে স্পটে যাচ্ছে কোম্পানিটি। ব্যাংক খাতে গতকালও ৮৩ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। এ খাতে লেনদেন বেড়েছে সাত কোটি টাকার বেশি। যমুনা ব্যাংক দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। বাকি খাতগুলোতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে লেনদেন না হলেও আর্থিক খাতে ৪৮ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে সাড়ে ৬২ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে ইনটেক লিমিটেড দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। সেবা ও আবাসন খাতে ৭৫ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। এছাড়া দুটি মিউচুয়াল ফান্ড দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। পাট খাতে শতভাগ কোম্পানি দরপতনে ছিল।