সারা বাংলা

গোপালগঞ্জে ডায়রিয়া পরিস্থিতি ভয়াবহ

প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ: প্রচণ্ড গরমে গোপালগঞ্জে ডায়রিয়া পরিস্থিতি এখন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা। গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে প্রতিদিন আসছে নতুন নতুন রোগী। ওয়ার্ডে আসন সংকুলান না হওয়ায় রোগীদের ঠাঁই হচ্ছে বারান্দা, রেইন শেড ও খোলা আকাশের নিচে। এ অবস্থায় রোগী ও তার স্বজনরা খোলা ড্রেনের পচা ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধে এবং মশামাছির উপদ্রবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে।
গত সাত দিনে তিনশ’র বেশি ডায়রিয়া রোগী হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিয়েছে। প্রতিদিন ৩০-৩৫ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। এদিকে অতিরিক্ত রোগী আসায় হাসপাতালে স্যালাইন সংকট দেখা দিয়েছে, যে কারণে বাইরে থেকে কিনে এনে স্যালাইন দিতে হচ্ছে রোগীদের। এদিকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে রয়েছে মাত্র ১৬টি শয্যা। তীব্র গরমে প্রতিদিনই নতুন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছে। ফলে মাত্র ১৬টি শয্যা থাকায় সংকুলান না হওয়ায় বাধ্য হয়েই কোনো কোনো বেডে দুজন রাখার পাশাপাশি বারান্দার নিচে, ওয়ার্ডের বাইরে, রেইন শেডের নিচে ও খোলা জায়গায় রোগীদের রেখে চিকিৎসা দিতে হচ্ছে। গত সাত দিনে প্রায় ৩৫০ রোগী ডায়রিয়ার চিকিৎসা নিয়েছে। সেইসঙ্গে হঠাৎ করে রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় হাসপাতালে দেখা দিয়েছে ওষুধ সংকট। রুম সংকটের কারণে রোগীদের বারান্দা ও বাইরে রাখায় ঠিকমতো চিকিৎসাসেবা দেওয়া যাচ্ছে না বলে জানান ওয়ার্ড ইনচার্জ।
হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. অসিত কুমার মল্লিক জানান, তীব্র গরমে হঠাৎ করে হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় রোগীদের বাইরে রেখে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। সবাই যাতে চিকিৎসাসেবা পায় সেজন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও কর্মকতা-কর্মচারীরা কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া পর্যাপ্ত ওষুধ ও নতুন ভবনে কাজ করতে পারলে সামনে যেকোনো সমস্যার সমাধান করা যাবে।
অন্যদিকে ডায়রিয়া ওয়ার্ডের আসনসংখ্যা বাড়ানোসহ ওষুধ ও চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন রোগী ও তাদের স্বজনরা।

সর্বশেষ..



/* ]]> */