চট্টগ্রামে মাসব্যাপী উইমেন এসএমই মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের রেলওয়ে স্টেডিয়াম পলোগ্রাউন্ড মাঠে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী ১২তম আন্তর্জাতিক উইম্যান এসএমই এক্সপো-২০১৮। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্কবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী মাসব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবিহা নাহার বেগম, বাংলাদেশে নিযুক্ত সংযুক্ত আরব-আমিরাতের রাষ্ট্রদূত সাদ মোহাম্মদ আল-মুহাইরি। এছাড়া চিটাগং চেম্বারের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম ও এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপাসন কেএম হাবিব উল্যাহ উপস্থিত ছিলেন।
ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো, এসএমই ফাউন্ডেশন ও জুট ডাইভার্সিফিকেশন প্রমোশান সেন্টারের সহযোগিতায় চিটাগং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ মাসব্যাপী এ মেলার আয়োজন করে।
দ্বাদশ বারের মতো আয়োজিত এ মেলায় তিন শতাধিক স্টল ও ১০টি প্যাভেলিয়নে দেশ-বিদেশের উদ্যোক্তারা তাদের উদ্ভাবনী পণ্য নিয়ে হাজির হয়েছেন। যেখানে নারী উদ্যোক্তাদের স্বল্পমূল্যে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়েছে।
আয়োজকরা জানান, এবারের মেলায় ইরান, ভারত, চায়না, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড ও পাকিস্তানের উদ্যোক্তারা তাদের অংশগ্রহণ ইতোমধ্যে নিশ্চিত করেছে।
এছাড়া এসএমইখাতে নারী উদ্যোক্তাদের এসএমই ব্যাংকসমূহের সঙ্গে সেতুবন্ধন তৈরি করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্বিক সহযোগিতায় আয়োজন করা হচ্ছে ‘পঞ্চম এসএমই ব্যাংকিং ম্যাচ-মেকিং ফেয়ার’। যেখানে তাৎক্ষণিকভাবে ঋণ গ্রহণে আগ্রহী এসএমই নারী উদ্যোক্তাদের নির্বাচন করে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে ঋণ প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। পাশাপাশি ঋণ গ্রহণে যোগ্য সংখ্যক উদ্যোক্তাকে ঋণ প্রদান করা হবে।
আয়োজকরা জানান, মেলার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ ক্যাম্প, সিসি টিভি ক্যামেরা, বেসরকারি নিরাপত্তা রক্ষী, ফায়ার সার্ভিসসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখা হয়। বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন ও সার্বক্ষণিকভাবে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও শিশুদের বিনোদনের জন্য আকর্ষণীয় বিনোদন পার্কসহ নগরীর স্কুল শিশুদের জন্য বিনামূলে টিকিট সরবরাহের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
মেলার সৌন্দর্য্য বিকাশের জন্য আকর্ষণীয় তোরণ, দৃষ্টিনন্দন ফোয়ারা ও সুউচ্চ টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছে।
উইমেন চেম্বারের সভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে এবং অধিকার রক্ষায় আমরা আজ অনেকে বিভিন্নভাবে জড়িত, কিন্তু আমাদের এ সংগঠনটির সংঘটিত হওয়ার ইতিহাস সম্পূর্ণরূপে ভিন্ন। আমরা একতাবদ্ধ হয়েছিলাম ব্যবসা ক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধিতে এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রসারে নারীদের অংশগ্রহণকে আরও বেগবান করতে। সুযোগ পেলে নারীরা যে এগিয়ে যেতে পারে তার বাস্তব উদাহরণ আজকের চিটাগং উইম্যান চেম্বার। স্বল্পঋণ, প্রশিক্ষণ ও বাজারজাতকরণের মতো সামান্য সহযোগিতা পেলে নারীরা যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে পারে তার প্রকৃত উদাহরণ আজকের আমাদের দেশের নারীদের অর্জন।
উল্লেখ, চট্টগ্রামে মহিলা উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে ২০০২ সাল থেকে মাসব্যাপী এ মেলা হয়ে আসছে।