দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

চট্টগ্রাম বন্দরে হুইল চেয়ার ঘোষণায় বাক্সভর্তি ইট আমদানি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রাম বন্দরে চীন থেকে আনা তিনটি কনটেইনারে বাক্সভর্তি ইট পাওয়া গেছে। হুইল চেয়ার ও ক্র্যাশ প্লাস ওয়াকার ঘোষণা দিয়ে কন্টেইনারগুলো বন্দরে এনেছিল ঢাকার লোটাস সার্জিক্যাল নামে একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান। আমদানিকারকের পক্ষে পণ্য চালানটি খালাসের দায়িত্বে ছিল নর্থ বেঙ্গল এন্টারপ্রাইজ নামে একটি সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠান।
জানা গেছে, সরকারি একটি গোয়েন্দা সংস্থার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কনটেইনার তিনটি কায়িক পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়া হয়। চট্টগ্রাম কাস্টমস সূত্রে জানা যায়, সি স্পেন নামে একটি জাহাজে করে কনটেইনার তিনটি ২৯ এপ্রিল চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছায়। কনটেইনারগুলো শতভাগ কায়িক পরীক্ষা করতে আমদানিকারকের পক্ষে সংশ্লিষ্ট সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রতিষ্ঠানকে প্রস্তুতি নেওয়ার চিঠি দেওয়া হয়। গতকাল কায়িক পরীক্ষায় ঘোষণাবহির্ভূত পণ্য পাওয়া যায়।
এ বিষয়ে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের কমিশনার কাজী মোস্তাফিজুর রহমান শেয়ার বিজকে বলেন, এক হাজার সাতটি হুইল চেয়ার ও ৪৫০ পিস ক্র্যাশ প্লাস ওয়াকার ঘোষণা ছিল। একটি কনটেননারে কেবল ৪০টি হুইল চেয়ার পাওয়া গেছে। বাকিগুলোতে বাক্সভর্তি ইট পাওয়া যায়। এ চালানের আমদানি মূল্য ছিল ৭১ হাজার ডলার। আর এ চালানের জন্য এলসি করা হয়েছিল ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ঢাকা হেড অফিস থেকে। তবে টাকা ছাড় না করার জন্য ব্যাংকে ফোন করা হয়েছে।
এ ঘটনায় আমদানিকারকের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমদানিকারকের বক্তব্য এখনও আমরা পাইনি। সিঅ্যান্ডএফ মালিককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তারা বলেছে, আগে কখনও এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। তবে এর সঠিক কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারেনি। তাই মুদ্রা পাচার আইনে মামলা হবে।’

সর্বশেষ..



/* ]]> */