প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

চাহিদা বেশি ছিল জ্বালানি ব্যাংক বিমা ও আর্থিক খাতে

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গত তিন কার্যদিবসে সূচকের উল্লম্ফনে লেনদেন চলছে। বাজার গতিশীল করতে সরকার উদ্যোগী হওয়ায় গত তিন কার্যদিবসে সূচক বেড়েছে ২১৯ পয়েন্ট। গতকাল একদিনে বেড়েছে ১০৮ পয়েন্ট। সে সঙ্গে লেনদেনও বাড়ছে ধারাবাহিকভাবে। আর বাজার গতিশীল হওয়ায় ছোট-বড় বিনিয়োগকারীরাও ধীরে ধীরে সক্রিয় হচ্ছেন। সব খাতেই ইতিবাচক গতিতে লেনদেন হচ্ছে। শেয়ার কেনার চাহিদা কম-বেশি সব খাতেই ছিল। তবে সবচেয়ে বেশি চাহিদা ছিল জ্বালানি, ব্যাংক, বিমা ও আর্থিক খাতে। বিবিধ খাতও ভালো অবস্থানে ছিল। এছাড়া ক্ষুদ্র খাতগুলোর মধ্যে শতভাগ ইতিবাচক ছিল পাট, সেবা ও আবাসন, কাগজ ও মুদ্রণ এবং ভ্রমণ ও অবকাশ খাত।
তবে গতকাল লেনদেন বেশি হয়েছে প্রকৌশল খাতে। এ খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ বা প্রায় ৯০ কোটি টাকা। দর বেড়েছে প্রায় ৮৪ শতাংশ কোম্পানির। এ খাতের ন্যাশনাল টিউবসের সাড়ে ১৭ কোটি টাকা লেনদেন হয়; দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ১০ পয়সা। ন্যাশনাল পলিমারের প্রায় ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজ ও অলিম্পিক এক্সেসরিজ লিমিটেড। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১৩ শতাংশ। এ খাতে ৮২ শতাংশ কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে। লেনদেনের শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে এ্যাসকোয়ার নিট। কোম্পানিটির প্রায় ১০ কোটি টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় ৬০ পয়সা। বস্ত্র খাতের ফ্যামিলি টেক্স দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। এছাড়া জেনারেশন নেক্সট ও জাহিন টেক্সটাইল দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৭৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। অ্যাকটিভ ফাইনের সোয়া ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ২০ পয়সা। ব্যাংক ও জ্বালানি খাতে লেনদেন হয় ৯ শতাংশ করে। জ্বালানি খাতে ৯৫ শতাংশ, ব্যাংক খাতে ৯৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ইউনাইটেড পাওয়ারের প্রায় ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে প্রায় ১১ টাকা। এছাড়া বিমা খাতে ৯৪ শতাংশ ও আর্থিক খাতে ৯১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় ১০ শতাংশ করে বেড়ে বিমা খাতের ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স ও আর্থিক খাতের ফাস ফাইন্যান্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। প্রায় ২০ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে বিবিধ খাতের বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস ৪৯ পয়সা বৃদ্ধি পাওয়ায় চাহিদা বেড়েছে শেয়ারটির। এছাড়া চামড়াশিল্প খাতের ফরচুন শুজের প্রায় ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৪০ পয়সা। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস ১৪ পয়সা বেড়েছে। এছাড়া প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে।

সর্বশেষ..