বিশ্ব বাণিজ্য

চীন ও রাশিয়াকে নিয়ে নতুন পারমাণবিক চুক্তিতে আগ্রহী ট্রাম্প

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চীন ও রাশিয়াকে যুক্ত করে নতুন একটি পারমাণবিক চুক্তি স্বাক্ষরের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ পরিকল্পনা নিয়ে দেশ দুটির সঙ্গে আলোচনা করার কথা জানিয়েছেন তিনি। এ আলোচনায় উভয় দেশ খুবই উৎসাহ দেখিয়েছে বলেও জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। স্নায়ুযুদ্ধের যুগে রাশিয়ার সঙ্গে স্বাক্ষরিত ইন্টারমিডিয়েট রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস (আইএনএফ) চুক্তি বাতিলের পর নতুন অস্ত্র প্রতিযোগিতার আশঙ্কার মধ্যে এ পরিকল্পনার কথা জানালেন ট্রাম্প। খবর বিবিসি।
গত শুক্রবার রাশিয়ার সঙ্গে ১৯৮৭ সালে স্বাক্ষরিত আইএনএফ বাতিল করে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান ও সোভিয়েত নেতা মিখাইল গর্বাচেভের শাসনামলে স্বাক্ষরিত ওই চুক্তির আওতায় ৫০০ থেকে পাঁচ হাজার ৫০০ কিলোমিটার পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদন নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েনের মাধ্যমে এ চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে ওই চুক্তি বাতিল করে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে রাশিয়া। দুই পরাশক্তির চুক্তি বাতিলের পর বিশ্বে নতুন করে অস্ত্র প্রতিযোগিতার আশঙ্কা তৈরি হয়।
চুক্তি বাতিলের পর নতুন পারমাণবিক অস্ত্র প্রতিযোগিতা কীভাবে এড়াবেন এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, তার প্রশাসন রাশিয়ার সঙ্গে নতুন পারমাণবিক চুক্তির বিষয়ে আলোচনা করছে। যাতে করে তারাও কিছু ছাড় পায়, আমরাও কিছু ছাড় পাই বলেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, ‘কোনো কোনো ক্ষেত্রে আমাদের চীনকেও যুক্ত করতে হবে।’ নতুন এ চুক্তি স্বাক্ষর হবে বলে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, এটি বিশ্বের জন্য একটি বড় ঘটনা হবে। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘এ নিয়ে আলোচনায় চীন খুবই উৎসাহ দেখিয়েছে আর রাশিয়ার মনোভাবও একই। সে কারণে মনে হয় আমরা চুক্তিতে পৌঁছাতে পারব।’
২০১৯ সালের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমাদের সামরিক জোট ন্যাটো রাশিয়ার বিরুদ্ধে আইএনএফ চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলে। ট্রাম্প প্রশাসনের দাবি, তাদের কাছে প্রমাণ রয়েছে রাশিয়া এসএসসি-৮ নামের পরিচিত ৯এম৭২৯ ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে। এ অভিযোগ ন্যাটোর কাছে তুলে ধরলে তারাও মার্কিন দাবির পক্ষে অবস্থান নেয়। তবে ক্রেমলিন এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।
শুক্রবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, এ চুক্তি ভেস্তে যাওয়ার জন্য রাশিয়া এককভাবে দায়ী। ন্যাটো মিত্রদের পূর্ণ সমর্থনের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চিত হয়েছে যে, চুক্তির শর্ত ভঙ্গের জন্য রাশিয়া দায়ী। এর ফলে এ চুক্তির শর্ত মানতে যুক্তরাষ্ট্রের আর কোনো দায়বদ্ধতা নেই। এরপরই রুশ বার্তা সংস্থা রিয়া নভোস্তি জানায়, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক বিবৃতিতে নিশ্চিত করেছেন যে, চুক্তিটি ‘আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত’।
দুই পরাশক্তির চুক্তি বাতিলে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস সতর্ক করে বলেন, পারমাণবিক যুদ্ধ বন্ধের এক অমূল্য সম্ভাবনা নষ্ট হয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘এর মাধ্যমে ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের হুমকি বাড়বে বই কমবে বলে মনে হয় না।’ বৈশ্বিক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের জন্য চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য নতুন একটি সাধারণ উপায় তৈরিতে সব পক্ষকে আহ্বান জানান তিনি।

সর্বশেষ..