চুনারুঘাটে পোকার আক্রমণে সবজি চাষ ব্যাহত

কাজল সরকার, হবিগঞ্জ: ডিসেম্বরের বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতায় সবজিক্ষেত নষ্ট হওয়ার পর তৃতীয় দফায় গাছ মরে যাওয়া ও পোকার আক্রমণে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সবজি চাষ ব্যাহত হচ্ছে। কৃষি বিভাগের বিষমুক্ত সবজি চাষ প্রকল্পের কৃষকের সবজিক্ষেতও রয়েছে ক্ষতিগ্রস্তের এ তালিকায়। একের পর এক লোকসানের মুখে পড়ে দুই চোখে অন্ধকার দেখছেন উপজেলার ১৫ গ্রামের কয়েক শতাধিক কৃষক। দুই দফা চারা রোপণ করেও কাক্সিক্ষত ফসল না পেয়ে হতাশা তারা।

জানা যায়, উপজেলায় সাত হাজার ৪৮ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের শীতকালীন সবজি চাষ করা হয়। ডিসেম্বরের বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতায় সবজিক্ষেত নষ্ট হওয়ার পর তৃতীয় দফায় গাছ মরে যাওয়া ও পোকার আক্রমণে এর মধ্যে সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে ৩২০ হেক্টর জমির সবজি। আর নষ্ট হওয়ার পথে রয়েছে প্রায় ৫০০ হেক্টর জমির সবজি। এর মধ্যে লাউ, বাঁধাকপি, ফুলকপি, টমেটো, বেগুন, শসাসহ সব ধরনের সবজি গাছের ফুল ঝরে পড়ছে। এছাড়া নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ফল ও চারা। কোনো কোনোটি আবার লালচে রঙ ধারণ করেছে। সেই সঙ্গে পোকার আক্রমণ মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছে।

উপজেলার উবাহাটা, কাচিশাইল, জিকুয়া, গোপালপুর, হাঁসার গাঁও, বালিহাড়ি, নয়াগাঁও, কলিমপুর ও শীমুল তলাসহ ১৫টি গ্রামের কয়েক শতাধিক কৃষক পরিবার এমন ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন।

দুই দফা চারা রোপণ করেও কোনো ফল পাচ্ছেন না কৃষক। ফলে তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে হতাশা। কৃষকদের দাবি, সবজি চাষে যে পরিমাণ খরচ হয়েছে তাও তাদের উঠবে না। ফলে তাদের গুনতে হবে লাখ লাখ টাকার লোকসান।

কৃষক শাহিনার আলম জানান, প্রথম অবস্থায় বৃষ্টির পানিতে তার সবজিক্ষেত নষ্ট হয়ে যায়। পরে তিনি আবারও বিভিন্ন ধরনের সবজির চারা রোপণ করেন। কিন্তু ঘন কুয়াশা ও শৈত্যপ্রবাহে এখন আবার চারাগুলো নষ্ট হয়ে গেছে।

জহির মিয়া জানান, বৃষ্টির কারণে কপি ও মরিচের চারা মরে যাওয়ার পর নতুন করে রোপণ করেন। কিন্তু ফল আসার সঙ্গে সঙ্গে এখন আবার সেগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে পোকায় আক্রমণ করেছে। এতে শীতকালীন সবজি উৎপাদনে মারাত্মক বিপর্যয় ঘটবে। সেই সঙ্গে আগামী বছর সবজি চাষ থেকে কিছুটা দূরে থাকবেন বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় চাষি আবুল কালাম জানান, একের পর এক লোকসানের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশাপাশি ঋণগ্রস্তও হয়ে পড়ছেন তারা।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক ব্রজবাগি দেবনাথ নিমাই জানান, বৃষ্টির কারণে এবার আগাম শীতকালীন সবজির কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। এখন আবার বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে সবজিক্ষেত। কৃষি অফিস থেকে সবজি চাষিদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হচ্ছে। তাছাড়া অবস্থা থেকে উত্তরণে নিয়মিত মাঠ পর্যায়ে গিয়ে চাষিদের বিভিন্ন পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।