জাবি শিক্ষার্থীর কনজারভেশন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড লাভ

পাখিমেলা ২০১৯

পাখিবিষয়ক বিশেষ প্রতিবেদনের জন্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীসহ তিনজন ‘কনজারভেশন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০১৯’ অর্জন করেছেন।
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তন প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত ‘পাখিমেলা ২০১৯’-এ এই অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের উদ্যোগে পাখিমেলার সহ-আয়োজক ছিল বাংলাদেশ বার্ডস ক্লাব, আইইউসিএন, বাংলাদেশ বন অধিদফতর, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন।
পাখি তথা জীববৈচিত্র্যবিষয়ক প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ২০১৮ সালে প্রকাশিত সংবাদের পর্যালোচনা করে তিন ক্যাটেগরিতে তিনজনকে পুরস্কৃত করা হয়। ‘প্রিন্ট মিডিয়া’ ক্যাটেগরিতে বিজয়ী আদীব আরিফের ‘দুর্লভ ছয় প্রজাতির পাখি’ শিরোনামে দৈনিক কালের কণ্ঠে ২৮ মার্চ, ২০১৮ একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদন নিয়ে মেলার আহ্বায়ক ও অ্যাওয়ার্ডের সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান বলেন, ছয় পাখি নিয়ে তথ্যবহুল ছিল এ প্রতিবেদনটি। এর মধ্যে খয়রা টুপি বাটকুড়ালি, চিতিঠুটি গগনবেড় ও মাস্কড বুবি পাখি তিনটি ছিল দেশের নতুন আবিষ্কার। অন্য তিনটি প্রজাতিও দেশে দুর্লভ। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের স্নাতকোত্তর পর্যায়ের শিক্ষার্থী ও ফিচার লেখক আদীব। অনলাইন ক্যাটেগরিতে সেরা নির্বাচিত হন রাহুল এম ইউসুফ। দৈনিক যুগান্তরের অনলাইনে ২১ ডিসেম্বর, ২০১৮ ‘নিরাপদ নেই পাখির পরিবেশ’ শিরোনামে তার একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। অতিথি পাখির নিরাপদ বাসস্থান নিয়ে তিনি এই বিশেষ প্রতিবেদন করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের স্নাতক পর্যায়ের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের যুগান্তরের প্রতিনিধি। ইলেকট্রনিক ক্যাটেগরিতে বিজয়ী হন মাইটিভির রিপোর্টার মো. আবদুল্লাহ আল ওয়াহিদ।
দিনব্যাপী পাখিমেলার অন্য আয়োজনের মধ্যে ছিল আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় পাখি দেখা প্রতিযোগিতা। পাশাপাশি পাখিবিষয়ক আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও শিশু-কিশোরদের পাখির ছবি আঁকা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এছাড়া টেলিস্কোপ ও বাইনোকুলারস দিয়ে শিশু-কিশোরদের পাখি পর্যবেক্ষণ, স্টল সাজানো প্রতিযোগিতা, অডিও-ভিডিওর মাধ্যমে পাখি চেনা প্রতিযোগিতা, পাখিবিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী ও সমাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

আবু নাঈম তরুণ