বিশ্ব পণ্যবাজার

জ্বালানি ও শ্রম খরচ বৃদ্ধি চলতি বছর মুনাফা কমবে উড়োজাহাজ সংস্থাগুলোর

শেয়ার বিজ ডেস্ক: জ্বালানি ব্যয় ও শ্রম খরচ বৃদ্ধি পাওয়ায় বিশ্বের বড় এয়ারলাইনসগুলোর মুনাফায় নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। শীর্ষ উড়োজাহাজ সংস্থাগুলোর সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইএটিএ) চলতি বছরের জন্য মুনাফার পূর্বাভাস ১২ শতাংশ কমিয়েছে। খবর বিবিসি।
আইএটিএর বার্ষিক সভায় বলেছে, সুদের হার বৃদ্ধি এবং বিশ্বব্যাপী বাণিজ্য উত্তেজনায় বিমান পরিবহন ব্যবসায় নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে জ্বালানির ব্যয় এবং শ্রম খরচ বৃদ্ধি। চলতি ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাপী উড়োজাহাজ সংস্থাগুলো ৩৩ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার মুনাফা করবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।
মুনাফা হ্রাসের পূর্বাভাস দিলেও আইএটিএর পরিচালক আলেক্সান্ডার ডি জুনিয়াক বলেছেন, ২০১০ সালের মন্দার পর ঘুড়ে দাঁড়ানো উড়োজাহাজ শিল্প শক্ত অবস্থানেই থাকবে।
গত বছর উড়োজাহাজ সংস্থাগুলো আয় রেকর্ড ৩৮ বিলিয়ন ডলার আয় করেছিল। চলতি বছর জ্বালানি খরচ আগের বছরের তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বাড়বে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হবে। তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি গড়ে ৭০ ডলারের মধ্যে থাকবে। গত বছর ব্যারেলপ্রতি গড় দাম ছিল ৫৪ ডলার ৯০ সেন্ট। আইএটিএ বিশ্বব্যাপী ২৮০টি এয়ারলাইনসের প্রতিনিধিত্ব করে। বিশ্বের ৮৩ শতাংশ উড়োজাহাজ যানবাহন এ সংস্থাগুলোই নিয়ন্ত্রণ করে।
এদিকে বিশ্বব্যাপী বাণিজ্য উত্তেজনা বৃদ্ধি এবং সংরক্ষণবাদ নীতিতে অর্থনৈতিক অনিশ্চতয়া বাড়ছে। চীন থেকে আমদানিকৃত পণ্যের ওপর শুল্কারোপে আবারও হুমকি দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। এছাড়া অন্যতম মিত্র দেশ কানাডা, মেক্সিকো ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে আমদানি করা ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামে অতিরিক্ত শুল্কারোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ অবস্থায় আকাশপথে বিভিন্ন দেশে যাত্রী ও মালপত্র রিবহনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।
সিডনিতে আইএটিএর বার্ষিক বৈঠকে অংশ নেওয়া জুনিয়াক আরও বলেন, ‘বাণিজ্য হ্রাস ও যাত্রী ভ্রমণে সীমাবদ্ধতা আরোপ করে এ ধরনের যে কোনো পদক্ষেপই দুঃসংবাদ। এটি শুধু বৈশ্বিক অর্থনীতির জন্য নয়, এ শিল্পের জন্যও দুঃসংবাদ।’
বিষয়টি নিয়ে ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের (ডবিøউটিটিসি) প্রধান নির্বাহী গেøারিয়া গুয়েভারা মাঞ্জোও উদ্বিগ্ন। তিনি বলেন, চলমান অনিশ্চয়তার কারণে উড়োজাহাজ শিল্পের মুনাফার অন্যতম প্রধান উৎস ব্যবসায়িক ভ্রমণের চাহিদা কমে আসবে। তিনি আরও বলেন, ‘ব্যবসায়িক ভ্রমণকারীরা কী ঘটছে, তা দেখার জন্য অপেক্ষা করবে। তাদের ব্যবসা প্রভাবিত হচ্ছে কিনা এবং তাদের ব্যবসার গন্তব্য পরিবর্তন করতে হবে কি না, সে বিষয়গুলো পর্যালোচনা করবে তারা। বাণিজ্যযুদ্ধ কোনোভাবেই ভালো নয়।’
এক্ষেত্রে একমত পোষণ করেছে উড়োজাহাজ নির্মাতা শীর্ষ দুই কোম্পানি বোয়িং ও এয়ারবাস। সংস্থা দুটি জানিয়েছে, এ অনিশ্চয়তা ব্যবসার জন্য খুবই নেতিবাচক। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও কর্মসংস্থানের জন্য মুক্তবাণিজ্য খুবই সহায়ক।

সর্বশেষ..