প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

ট্রাস্ট ব্যাংকের গলার কাঁটা চট্টগ্রামের রাইজিং গ্রুপ

সাইফুল আলম, চট্টগ্রাম: বেসরকারি ট্রাস্ট ব্যাংকের সবচেয়ে বড় ঋণখেলাপি গ্রাহক রাইজিং গ্রুপ। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড এলাকার ব্যবসায়ী ও বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর মালিকানাধীন এ শিল্পগ্রুপটির কাছে ট্রাস্ট ব্যাংকের পাওনা মোট ৩৫৯ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। তবে বিপুল এ পাওনার বিপরীতে ব্যাংকটির কাছে বন্ধকি সম্পত্তি আছে খুবই কম। অপরদিকে গ্রুপটির ব্যবসা বন্ধ হয়ে আছে। ফলে রাইজিং গ্রুপের কাছে পাওনা আদায় নিয়ে বেকায়দায় আছে ব্যাংকটি।
এর মধ্যে রাইজিং স্টিলের কাছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৬৭ কোটি ৯৫ লাখ ৫০ হাজার ৩৮৩ টাকা এবং সেভেন বি অ্যাসোসিয়েটের কাছে ১৯১ কোটি ৪৪ হাজার ৩২ হাজার ৬৩০ টাকা।
ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, রাইজিং গ্রুপের দুটি প্রতিষ্ঠান রাইজিং স্টিল ও সেভেন বি অ্যাসোসিয়েট ব্যবসার প্রয়োজনে অন্যান্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের মতো বেসরকারি ট্রাস্ট ব্যাংক থেকে ঋণ সুবিধা গ্রহণ করে। সময়ের ব্যবধানে এখন
প্রতিষ্ঠান দুটি ব্যাংকটির সবচেয়ে বড় ঋণখেলাপি গ্রাহক। এর মধ্যে রাইজিং স্টিলের কাছে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৬৭ কোটি ৯৫ লাখ ৫০ হাজার ৩৮৩ টাকা এবং সেভেন বি অ্যাসোসিয়েটের কাছে ১৯১ কোটি ৪৪ হাজার ৩২
হাজার ৬৩০ টাকা। অর্থাৎ এ গ্রুপের কাছে ব্যাংকটির পাওনা মোট ৩৫৯ কোটি ৩৯ লাখ ৮৩ হাজার টাকা।
ট্রাস্ট ব্যাংক সিডিএ এভিনিউ শাখার একাধিক কর্মকর্তা বলেন, রাইজিং গ্রুপের দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে গত ২৭ মার্চ রাইজিং স্টিলের বিরুদ্ধে অর্থঋণ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। একই গ্রুপের আরেক সহযোগী প্রতিষ্ঠান সেভেন বি অ্যাসোসিয়েটের পাওনার বিপরীতে বন্ধকি সম্পত্তি আছে ১৩ একর জমি। এ পাওনা আদায়ে আগামী ৩০ এপ্রিল নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। সম্প্রতি জাতীয় দৈনিকে এ-সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়।
এ বিষয়ে ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফারুক মঈন উদ্দিন শেয়ার বিজকে বলেন, আসলাম চৌধুরীর মালিকানাধীন রাইজিং গ্রুপের দুটি প্রতিষ্ঠান আমাদের সবচেয়ে বড় ঋণখেলাপি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে
রাইজিং স্টিলের বিরুদ্ধে গত মাসে মামলা করা হয়। আরেক প্রতিষ্ঠান সেভেন বি অ্যাসোসিয়েটের খেলাপির দায়ে বন্ধকি সম্পত্তি নিলামে তোলা হচ্ছে।
সব সম্পত্তি (জমি) নিলামে বিক্রি করলে কত পাওনা আদায় হবে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আসলে ব্যাংক তো বিশ্বাস ও ব্যবসা দেখে ঋণ দেয়। আর ঋণের সহায়ক হিসেবে পাওনার বিপরীতে জমি বন্ধক নেওয়া হয়। স্বাভাবিকভাবে বন্ধকি সম্পত্তির মূল্য অনেক কম হয়ে থাকে। আপনি খোঁজ করে দেখবেন, বড় গ্রুপগুলোর ঋণের বিপরীতে জামানত বা বন্ধকি সম্পদ কমই পাওয়া যায়।
উল্লেখ্য, রাইজিং গ্রুপের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কনফিডেন্স শু ফ্যাক্টরি, রাইজিং অ্যাডভান্সড স্টিল মিলস লিমিটেড, রাইজিং স্টিল লিমিটেড, সোনালী শিপ ব্রেকার্স অ্যান্ড স্টিল লিমিটেড, সেভেন-বি অ্যাসোসিয়েটসের শিপইয়ার্ড, অ্যাকোয়া ফুড লিমিটেড, ফিশ প্রিজারভার লিমিটেড ও কনসেপশন সি ফুড লিমিটেড, সোনালী সিএনজি লিমিটেড, চলমান সিএনজি লিমিটেড, পতেঙ্গা রি-ফুয়েলিং ও রাইজিং সিএনজি রি-ফুয়েলিং প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

সর্বশেষ..



/* ]]> */