কোম্পানি সংবাদ

ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ২২ দশমিক ৫৩ শতাংশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে সবগুলো সূচক পতনের পাশাপাশি লেনদেন কমেছে ২২ দশমিক ৫৩ শতাংশ। দৈনিক গড় লেনদেনও একই হারে কমেছে। সে সঙ্গে সবগুলো সূচক নেতিবাচক অবস্থানে ছিল। বাজার মূলধন কমেছে এক দশমিক ১২ শতাংশ। গত সপ্তাহে লেনদেন হয় পাঁচ কার্যদিবস। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল পাঁচ কার্যদিবস। লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে দুদিন সূচকের উত্থান হয়ে তিন দিন পতন হয়। তবে উত্থানের চেয়ে পতনের হার অনেক বেশি ছিল। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) একই চিত্র দেখা গেছে।
সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৯১ দশমিক ৬০ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৭৫ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ১৩০ দশমিক ৭০ পয়েন্টে স্থির হয়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ১৮ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫৫ শতাংশ কমে এক হাজার ১৭৬ দশমিক ১৪ পয়েন্টে পৌঁছায়। ডিএস৩০ সূচক ২৮ দশমিক ১৩ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫১ শতাংশ কমে এক হাজার ৮২৯ দশমিক ৫৮ পয়েন্টে স্থির হয়। মোট ৩৫৬ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬৬টির, কমেছে ২৭৩টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৫ কোম্পানির শেয়ারদর। লেনদেন হয়নি দুটির। দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩২৭ কোটি ৩৫ লাখ ৪৫ হাজার ৭৫৯ টাকা। আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৪২২ কোটি ৫৭ লাখ ৫০ হাজার ৮০৮ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক গড় লেনদেন কমেছে ৯৫ কোটি ২২ লাখ টাকা বা ২২ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
গেল সপ্তাহে ডিএসইতে মোট টার্নওভার বা লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় এক হাজার ৬৩৬ কোটি ৭৭ লাখ ২৮ হাজার ৭৯৬ টাকা। আগের সপ্তাহে যা ছিল দুই হাজার ১১২ কোটি ৮৭ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার কমেছে ৪৭৬ কোটি ১০ লাখ ২৫ হাজার টাকা বা ২২ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৮৬ হাজার ৬১৪ কোটি ৪৯ লাখ ৩৭ হাজার ৯৮০ টাকা। শেষ কার্যদিবসে যার পরিমাণ ছিল তিন লাখ ৮২ হাজার ২৮৭ কোটি ছয় লাখ ২৯ হাজার ৪৪৯ টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন কমেছে এক দশমিক ১২ শতাংশ বা চার হাজার ৩২৭ কোটি টাকা।
গত সপ্তাহে ডিএসইর টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির দর ৫৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ বেড়েছে। তালিকায় এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা ভ্যানগার্ড এএমএল রূপালী ব্যাংক ব্যালেন্সড ফান্ডের দর ৩৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ, ভ্যানগার্ড এএমএল বিডি ফাইন্যান্স মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ানের দর ১৯ দশমিক ২৩ শতাংশ, ফরচুন শুজের দর ১৫ দশমিক ৯৯ শতাংশ বেড়েছে। এসইএমএল লেকচার ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের দর ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ এবং এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ্ ফান্ডের দর ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া ন্যাশনাল পলিমার ইন্ডাস্ট্রিজের ৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, বীকন ফার্মাসিউটিক্যালসের আট দশমিক ৫৪ শতাংশ, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের সাত দশমিক ৭২ শতাংশ, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের দর পাঁচ দশমিক ৯৯ শতাংশ বেড়েছে।
অন্যদিকে ৩৪ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ কমে সাপ্তাহিক দরপতনের শীর্ষে অবস্থান করে বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স। ফার্স্ট ফাইন্যান্স লিমিটেডের ২৭ দশমিক ২৭ শতাংশ, ফারইস্ট ফাইন্যান্সের ২৩ দশমিক ৯১ শতাংশ, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ২১ দশমিক ৩২ শতাংশ, এমারাল্ড অয়েলের ২০ দশমিক ৭১ শতাংশ, আলহাজ্জ টেক্সটাইলের ২০ দশমির্ক ৬৮ শতাংশ, ইউনিয়ন ক্যাপিটালের ২০ দশমিক ৬২ শতাংশ, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের ২০ শতাংশ, ডেল্টা স্পিনার্সের ১৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ এবং মুন্নু সিরামিকের দর ১৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ কমেছে।
ডিএসইতে টার্নওভারের দিক থেকে শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো: ফরচুন শুজ, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, গ্রামীণফোন, সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স, সি পার্ল বিচ, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বীকন ফার্মা, মুন্নু সিরামিক ও ঢাকা ইন্স্যুরেন্স।
অন্যদিকে দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৩১৩টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৫৭টির, কমেছে ২৪৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১০টির দর।
সিএসইতে গত সপ্তাহে সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স কমেছে দুই দশমিক ৮৭ শতাংশ। এছাড়া সিএএসপিআই সূচক কমেছে তিন দশমিক শূন্য এক শতাংশ, সিএসই৫০ সূচক কমেছে দুই দশমিক ৩৭ শতাংশ, সিএসআই সূচক তিন দশমিক ১৬ শতাংশ ও সিএসই৩০ সূচক এক দশমিক ৭২ শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গেল সপ্তাহে টার্নওভারের পরিমাণ দাঁড়ায় ৮৩ কোটি ২৭ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ৮৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। লেনদেন কমেছে ছয় কোটি ২০ লাখ টাকা।
৩৮ দশমিক ৮৬ শতাংশ বেড়ে সিএসইতে সাপ্তাহিক টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে প্রাইম ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। এসইএমএল লেকচার ইকুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের ২৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ, এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ্ ফান্ডের দর ২৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ বেড়েছে। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল এশিয়ান টাইগার সন্ধানী লাইফ গ্রোথ ফান্ড, সিএপিএম বিডিবিএল মিউচুয়াল ফান্ড ওয়ান, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, এনএলআই ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ড, এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড ও ঢাকা ইন্স্যুরেন্স।
অন্যদিকে টপ টেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে পিপলস লিজিং ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, তুংহাই নিটিং, শাইনপুকুর সিরামিক, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস, কেয়া কসমেটিকস, ইনটেক অনলাইন, ফার্স্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।
সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো: স্কয়ার ফার্মা, রানার অটোমোবাইল, ভিএফএস থ্রেড, বসুন্ধরা পেপার মিলস, রূপালী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি, ওরিয়ন ফার্মা, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স, সিলকো ফার্মা ও বেক্সিমকো লিমিটেড।

সর্বশেষ..



/* ]]> */