প্রথম পাতা

ডিএসইতে সূচক কমলেও দৈনিক লেনদেন বেড়েছে ১১.৯০ শতাংশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গত সপ্তাহে সবগুলো সূচক ও বাজার মূলধন কমলেও দৈনিক গড় লেনদেন বেড়েছে ১১ দশমিক ৯০ শতাংশ। সেই সঙ্গে বেড়েছে মোট লেনদেন। গত সপ্তাহে পাঁচ কার্যদিবস লেনদেন হলেও আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় চার কার্যদিবস। কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারদর। লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে একদিন সূচক বাড়লেও বাকি চার দিন পতনে ছিল। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সূচকে মিশ্র প্রবণতা ছিল। লেনদেন ও বেশিরভাগ শেয়ারদর বেড়েছে।
সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১০ দশমিক ৯২ পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ২৭৫ দশমিক ৮৩ পয়েন্টে স্থির হয়। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক চার দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৮ শতাংশ কমে এক হাজার ২২০ দশমিক ৩১ পয়েন্টে পৌঁছায়। ডিএস ৩০ সূচক ১৯ দশমিক ২৩ পয়েন্ট বা এক দশমিক শূন্য তিন শতাংশ কমে এক হাজার ৮৫১ দশমিক ৩৫ পয়েন্টে স্থির হয়। মোট ৩৫৩টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫২টির, কমেছে ১৭৯টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২০ কোম্পানির শেয়ারদর। লেনদেন হয়নি দুটির। দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৪২৮ কোটি ৯৬ লাখ ৩৩ হাজার ৯৭৬ টাকা। আগের সপ্তাহে দৈনিক গড় লেনদেন হয় ৩৮৩ কোটি ৩৩ লাখ ৫৭ হাজার ৩০৪ টাকা। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক গড় লেনদেন বেড়েছে ৪৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা বা ১১ দশমিক ৯০ শতাংশ।
গেল সপ্তাহে ডিএসইতে মোট টার্নওভার বা লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় দুই হাজার ১৪৪ কোটি ৮১ লাখ ৬৯ হাজার ৮৮০ টাকা। আগের সপ্তাহে যা ছিল এক হাজার ৫৩৩ কোটি ৩৪ লাখ ২৯ হাজার ২১৫ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে টার্নওভার বেড়েছে ৬১১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বা ৩৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ।
ডিএসইতে গত সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার বাজার মূলধন ছিল তিন লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৮ কোটি ৭৩ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। শেষ কার্যদিবসে যার পরিমাণ ছিল তিন লাখ ৮৮ হাজার ৫৯২ কোটি ৮৬ লাখ ৯১ হাজার টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে বাজার মূলধন কমেছে দশমিক শূন্য সাত শতাংশ বা ২৮৫ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।
গত সপ্তাহে ডিএসইর টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে বি ক্যাটেগরির ন্যাশনাল ফিড মিল। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির দর ২৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ বেড়েছে। তালিকায় এর পরের অবস্থানে থাকা এসএস স্টিল লিমিটেডের দর ২৬ দশমিক শূন্য চার শতাংশ বেড়েছে। অলিম্পিক এক্সেসরিজের দর ১১ দশমিক ৮৮ শতাংশ, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের দর ১১ দশমিক ৬১ শতাংশ বেড়েছে। এ্যাসকোয়ার নিটের দর ১১ দশমিক ৫৭ শতাংশ এবং ফাস ফাইন্যান্সের দর ১০ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিংয়ের দর ১০ দশমিক ৭১ শতাংশ, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের দর ১০ দশমিক ৪৯ শতাংশ, কাট্টলী টেক্সটাইলের দর ১০ দশমিক ২০ শতাংশ, ফু ওয়াং সিরামিকের দর ৯ দশমিক ২৪ শতাংশ বেড়েছে।
অন্যদিকে ১৩ দশমিক ৬৬ শতাংশ কমে সাপ্তাহিক দরপতনের শীর্ষে অবস্থান করে ইস্টার্ন ব্যাংক। এলআর গ্লোবাল বাংলাদেশ মিউচুয়াল ফান্ডের দর ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার দর ৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ, বিচ হ্যাচারির দর আট দশমিক ৭৬ শতাংশ, বাংলাদেশ ফাইন্যান্স ও ইনভেস্টমেন্টের দর আট দশমিক ৩৩ শতাংশ, সায়হাম কটন মিলসের দর আট দশমিক ৩৩ শতাংশ, সোনারগাঁও টেক্সটাইলের দর সাত দশমিক ৬৫ শতাংশ, পিপলস ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক ৫৩ শতাংশ, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক শূন্য আট শতাংশ, জিকিউ বলপেনের দর ছয় দশমিক ৮২ শতাংশ কমেছে।
ডিএসইতে টার্নওভারের দিক থেকে শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো ফরচুন সুজ, মুন্নু সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ, এ্যাসকোয়ার নিট, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন, পাওয়ার গ্রিড, ইন্দোবাংলা ফার্মা, ন্যাশনাল টিউবস, ন্যাশনাল পলিমার, জেনেক্স ইনফোসিস ও লিগ্যাসি ফুটওয়্যার লিমিটেড।
অন্যদিকে দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২৯১টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৫০টির, কমেছে ১২৬টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ১৫টির দর।
সিএসইতে গত সপ্তাহে সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স বেড়েছে দশমিক ১৭ শতাংশ। এছাড়া সিএএসপিআই সূচক বেড়েছে দশমিক ১৫ শতাংশ, সিএসই৫০ সূচক বেড়েছে দশমিক শূন্য সাত শতাংশ এবং সিএসআই সূচক দশমিক ২৪ শতাংশ কমেছে। সিএসই ৩০ সূচক দশমিক ৬৫ শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গেল সপ্তাহে টার্নওভারের পরিমাণ দাঁড়ায় ১১১ কোটি ৪১ লাখ ছয় হাজার ৪৭৮ টাকা। আগের সপ্তাহে যার পরিমাণ ছিল ৬৫ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার ২১০ টাকা। লেনদেন বেড়েছে ৪৬ কোটি শূন্য পাঁচ লাখ টাকা।
২৭ দশমিক ৮৩ শতাংশ বেড়ে সিএসইতে সাপ্তাহিক টপ টেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে ন্যাশনাল ফিড মিল লিমিটেড। এসএস স্টিলের দর ২৬ দশমিক ১৩ শতাংশ, এশিয়া প্যাসিফিক জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের দর ১৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ বেড়েছে। এরপরের অবস্থানগুলোতে ছিল তাকাফুল ইসলামী ইন্স্যুরেন্স, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স, উত্তরা ফাইন্যান্স, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স, কাট্টলী টেক্সটাইল, অলিম্পিক এক্সেসরিজ লিমিটেড।
অন্যদিকে টপ টেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে বিডি ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স। এরপরের অবস্থানগুলোতে ছিল ইস্টার্ন ব্যাংক, স্টান্ডার্ড সিরামিক, গোল্ডেন সন, সায়হাম কটন, শাহজিবাজার পাওয়ার, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স, মোজাফফর হোসেন স্পিনিং, ন্যাশনাল টি, বিডি ফাইন্যান্স ও ইনভেস্টমেন্ট।
সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো সায়হাম টেক্সটাইল মিলস, এ্যাসকোয়ার নিট, দি এক্মি ল্যাবরেটরিজ, ডরিন পাওয়ার, এসএস স্টিল, বিডি শিপিং করপোরেশন, ইন্দোবাংলা ফার্মা, ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং, বেক্সিমকো লিমিটেড ও লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ।

সর্বশেষ..