ডিএসইতে ২০৪ পয়েন্ট পতনের পর ১১ পয়েন্ট উত্থান

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) টানা তিন কার্যদিবসে ২০৪ পয়েন্ট সূচক পতনের পর গতকাল ১১ পয়েন্ট উত্থান হয়েছে। তবে তারল্য সংকটে লেনদেন নেমে গেছে ২২৪ কোটি টাকায়। তবে বেড়েছে প্রায় ৫৮ শতাংশ শেয়ারদর। গতকাল ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে ডিএসইএক্স সূচক ১১ পয়েন্ট বেড়ে গেলেও তা বেশি সময় স্থায়ী হয়নি। আধা ঘণ্টার মধ্যে বিক্রির চাপে সূচক আগের অবস্থানে ফিরে আসে। তবে বেলা ১টার পর থেকে শেয়ার কেনার চাপ কিছুটা বাড়লে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়। শেষ পর্যন্ত মাত্র ১১ পয়েন্ট ইতিবাচক থাকতে পেরেছে সূচক। অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক ও লেনদেনে একই চিত্র লক্ষ করা যায়।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ১১ দশমিক ৪০ পয়েন্ট বা দশমিক ২০ শতাংশ বেড়ে পাঁচ হাজার ৬৩৫ দশমিক শূন্য পাঁচ পয়েন্টে অবস্থান করে। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক চার দশমিক ৯২ পয়েন্ট বা দশমিক ৩৬ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩৩৮ দশমিক ১১ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস ৩০ সূচক পাঁচ দশমিক ৪৩ পয়েন্ট বা দশমিক ২৬ শতাংশ বেড়ে দুই হাজার ৯০ দশমিক ৯৮ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন কমে তিন লাখ ৯৬ হাজার ৮৬১ কোটি ৩১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা হয়। ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ২৯৮ কোটি ২৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের দিন লেনদেন হয় ২২৪ কোটি আট লাখ ছয় হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমে ৫৮ কোটি টাকা। এদিন ছয় কোটি ৭৫ লাখ ৭৬ হাজার ৫৯৩টি শেয়ার ৬৮ হাজার ৭১১ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৯৩টির, কমেছে ৯২টির, অপরিবর্তিত ছিল ৪৯টির দর।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ২২ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ৫২০ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩৭ দশমিক ৪৯ পয়েন্ট বেড়ে ১৭ হাজার ৪২৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২০৬টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০৯টির, কমেছে ৬৭টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৩০টির দর।

সিএসইতে এদিন ১১ কোটি ২৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ২৬ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ১৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। লেনদেনের শীর্ষে ছিল কুইন সাউথ।