ডিএসইর লেনদেন ফের হাজার কোটির ঘরে

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের প্রথম দিনে সূচকের বড় ধরনের উত্থান দিয়ে লেনদেন শুরু হলেও তা শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকেনি। গতকাল সূচকের ওঠানামাতে অস্থিরতার চিত্র ফুটে ওঠে। লেনদেনের প্রথমার্ধে কেনার চাপ বেশি থাকলেও শেষার্ধে বিক্রির চাপ বেড়ে যায়। ফলে বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন হয়। তবে শেষ মুহূর্তে প্রধান সূচক পৌনে দুই পয়েন্ট ঊর্ধ্বমুখী থেকে লেনদেন শেষ হয়। বেশ কয়েক দিন পরে ডিএসইর লেনদেন ফের হাজার কোটি টাকা ছাড়াল। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন হয়। অন্যদিকে ড্রাগন সোয়েটারের বড় অঙ্কের লেনদেন সত্ত্বেও আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন কমেছে।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এক দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য তিন শতাংশ বেড়ে পাঁচ হাজার ৩৩৯ দশমিক ১৮ পয়েন্টে অবস্থান করে।
ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক এক দশমিক ৪৮ পয়েন্ট বা দশমিক ১১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ২৭৪ দশমিক ৫৭ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস ৩০ সূচক চার দশমিক শূন্য ছয় পয়েন্ট বা দশমিক ২১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৯০৮ দশমিক ৫২ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়ে তিন লাখ ৮৬ হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা হয়। ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় এক হাজার ৫৪ কোটি ৯৩ লাখ ২৬ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৯১২ কোটি ২৩ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ১৪২ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এদিন ২২ কোটি ৩৯ লাখ আট হাজার ৫৮৫টি শেয়ার দুই লাখ ১৩ হাজার ২৬৪ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩৯টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪২টির, কমেছে ১৭১টির, অপরিবর্তিত ছিল ২৬টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে বিবিএস কেব্লস। কোম্পানিটির ৪০ কোটি ৯৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর বেড়েছে এক টাকা ৩০ পয়সা। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ইফাদ অটোসের ৪০ কোটি ১৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপরের অবস্থানগুলোতে ছিল নাহি অ্যালুমিনিয়াম, কেডিএস এক্সেসরিজ, আমান ফিড, ড্রাগন সোয়েটার, নাভানা সিএনজি, বসুন্ধরা পেপার মিলস, একটিভ ফাইন, শাশা ডেনিমস। সর্বোচ্চ সংখ্যক শেয়ার লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে প্যাসিফিক ডেনিমস লিমিটেড। কোম্পানিটির ৬৩ লাখ ৪৪ হাজার ৪২৩টি শেয়ার ১৪ কোটি ৫১ লাখ টাকায় লেনদেন হয়। তবে দর অপরিবর্তিত ছিল। এর পরের অবস্থানে ছিল অগ্নি সিস্টেম, ড্রাগন সোয়েটার, নাহি অ্যালুমিনিয়াম, অ্যাক্টিভ ফাইন, বিবিএস কেব্লস, দি পেনিনসুলা চিটাগাং, ইফাদ অটোস, আমান ফিড ও ফু ওয়াং ফুড। ১০ শতাংশ করে বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষে অবস্থান করে আমরা টেকনোলজিস, এএফসি এগ্রো, নাহি অ্যালুমিনিয়াম, এস আলম কোল্ড রোলড। এরপরে কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজের দর ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ, আফতাব অটো ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল ৯ দশমিক ৮৬ শতাংশ ও অ্যাক্টিভ ফাইন কেমিক্যাল ৯ দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া দি পেনিনসুলার দর ৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ ও পদ্মা লাইফের দর ৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ বেড়েছে।
১০ শতাংশ কমে ইমাম বাটন, সাভার রিফ্রাক্টরিজ, ইউনাইটেড এয়ার দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে। এরপর ৯ দশমিক ৯৫ শতাংশ দর কমেছে জুট স্পিনার্সের। মেঘনা পেটের দর কমে ৯ দশমিক ৮৬ শতাংশ, সোনারগাঁও টেক্সটাইলের দর ৯ দশমিক ৮৩ শতাংশ, দুলামিয়া কটনের দর ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ, শ্যামপুর সুগারের ৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ, মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের দর ৯ দশমিক ৭২ শতাংশ, ঢাকা ডাইয়ের দর ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ কমেছে।
অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ১২ দশমিক ৬৬ পয়েন্ট বেড়ে ৯ হাজার ৯৬০ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই সাত দশমিক ৮৩ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ৪৫২ পয়েন্টে অবস্থান করে। তবে সিএসই ৫০ ও সিএসই ৩০ সূচক কমেছে। সিএসইতে গতকাল সর্র্বমোট ২৪৪টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১১৮টির। কমেছে ১০৭টির। অপরিবর্তিত ছিল ১৯টির দর।
সিএসইতে এদিন ৮০ কোটি ১১ লাখ ৯৭ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ১৫২ কোটি ১৩ লাখ ৭৯ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৭২ কোটি টাকা। সিএসইতে গতকাল লেনদেনের নেতৃত্ব দেয় ড্রাগন সোয়েটার। কোম্পানিটির ৩৪ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এছাড়া জিপির তিন কোটি, গোল্ডেন হার্ভেস্টের এক কোটি ৬৩ লাখ, দি পেনিনসুলার এক কোটি ৫১ লাখ, সাউথ ইস্ট ব্যাংকের এক কোটি ৪৩ লাখ, বিবিএস কেব্লসের এক কোটি ৩২ লাখ, বসুন্ধরা পেপারের এক কোটি ২৯ লাখ, ইফাদ অটোস ও বেক্সিমকোর এক কোটি ১২ লাখ এবং সাইফ পাওয়ারের ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।