ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মিডিয়াবান্ধব করতে চাই

সাংবাদিকদের আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাকস্বাধীনতা ও স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থি কোনো আইন সরকার করবে না বলে জানিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে গণ ও মিডিয়াবান্ধব করতে চাই। সচিবালয়ে গতকাল আইন মন্ত্রণালয়ে খসড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে গণমাধ্যম মালিক ও সাংবাদিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, খসড়া সংশোধনগুলো নিয়ে সাংবাদিক নেতারা
আলাপ-আলোচনা করেছেন। তারপরও কিছু ব্যাখ্যা তারা আমার কাছে চেয়েছিলেন। তারা নতুন কিছু পরামর্শ দিয়েছেন।
তিনি বলেন, সংবিধানে যে বাকস্বাধীনতা এবং সাংবাদিকতায় স্বাধীনতা দেওয়া আছে, সেটা যেন বন্ধ না হয় এ কথা তারা বলেছেন। সেখানে আমি আগেও বলেছি, এখনও পরিষ্কারভাবে বলতে চাচ্ছি যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কিছুতেই বঙ্গবন্ধুর দেওয়া সংবিধানের বাকস্বাধীনতা ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা খর্ব করে কোনো আইন করবে না।
তিনি বলেন, এ আইনটার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আমরা সবাই ঐকমত্য প্রকাশ করেছি। আইনটি গণবান্ধব ও মিডিয়াবান্ধব হোক, এটাই আমরা চাই। একটা ভালো আইন হওয়ার যে পথ, এ আলোচনায় সে পথ পরিষ্কার হয়েছে।
দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেন, খসড়া আইনটি নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে, আমরা আইনমন্ত্রীকে অনেক প্রস্তাব দিয়েছি। সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর্যায়ে আমরা এখনও পৌঁছাইনি। আমরা ক্রমান্বয়ে আলোচনার মধ্যে আছি। তিনি বলেন, আমরা বলেছি সাংবাদিকদের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা যেন কোনোভাবেই খর্ব না হয়, মত প্রকাশের স্বাধীনতা যাতে রক্ষা করা হয়।
সাংবাদিক নেতা মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, খসড়া আইনের বিভিন্ন ধারার ব্যাখ্যায় অস্পষ্টতা ছিল, আইনমন্ত্রী সেগুলো স্পষ্ট করেছেন। সংবিধান বা অন্য আইনের সঙ্গে কোনো কিছু সাংঘর্ষিক কি না সেগুলো বলেছেন। আমরা বলেছি, দেশের স্বার্থে নিরাপত্তার স্বার্থে একটা নিরাপত্তা আইন চাই। আইনের ব্যাখ্যা ও স্পিরিট নিয়ে আলোচনা হয়েছে।
একাত্তর টিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোজাম্মেল হক বাবু বলেন, আমরা মনে করি এই আইনের মাধ্যমে আমাদের সাংবাদিকতা কোনোভাবেই ক্ষুন্ন হবে না।