তথ্য প্রকাশের আগেই বাজারে তার প্রভাব পড়ে

প্রতি রবি থেকে বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজারের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে এনটিভি ‘মার্কেট ওয়াচ’ অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার করে। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ বিবেচনায় তার গুরুত্বপূর্ণ অংশ নিয়ে শেয়ার বিজের নিয়মিত আয়োজন ‘এনটিভি মার্কেট ওয়াচ’ পাঠকের সামনে তুলে ধরা হলো:

একটি দক্ষ পুঁজিবাজারে সাধারণত যে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশের পর তার ভিত্তিতে বাজারের গতিবিধি পরিবর্তন হয়। কিন্তু আমাদের দেশের পুঁজিবাজারে তা হয় না। এখানে তথ্য আসার আগেই মানুষ তা জেনে যায় এবং বাজারের গতিবিধি আগেই পরিবর্তন হয়ে যায়। ফলে যখন প্রত্যাশা করা হয় বাজার গতিশীল হবে, তখন তার বিপরীতটা ঘটতে দেখা যায়। গতকাল এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানে বিষয়টি আলোচিত হয়। খুজিস্তা নূর-ই-নাহারীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আলোচক ছিলেন এনবিইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহসানুল আলম পারভেজ এবং কেএইচবি সিকিউরিটিজ লিমিটেডের এমডি রাজিব সোম।

আহসানুল আলম পারভেজ বলেন, সবার প্রত্যাশা ছিল নতুন বছরে বাজারের গতিবিধি ভালো থাকবে। কিন্তু তা না হয়ে এখন বাজার কিছুটা ধীরগতিতে আছে। তবে হিসাব অনুযায়ী, এটাই হওয়ার কথা। গত বছর ব্যাংক খাতের ভালো গতিবিধির কারণে সূচক ঊর্ধ্বমুখী হতে দেখা গেছে। কিন্তু এ খাতের শেয়ারের দর বৃদ্ধির আগে অধিকাংশ ব্যাংকের দর অবমূল্যায়িত অবস্থায় ছিল। বিশেষজ্ঞরা যখন এ খাতে বিনিয়োগের পরামর্শ দেওয়া শুরু করেন, তখন থেকে ব্যাংক খাতের শেয়ারদর বাড়তে থাকে। তবে ব্যাংক খাতের শেয়ার যেভাবে বাড়ার কথা ছিল তার চেয়ে বেশি বেড়েছে। কারণ এটি নিয়ে এক প্রকার খেলা হয়েছে। কিছু ব্যাংকের মালিকানা অধিগ্রহণ করার জন্য বিভিন্ন হাউজ থেকে বিচক্ষণ উপায়ে শেয়ার কেনার কারণে দর বেড়েছে। আর ধারাবাহিকভাবে বেশ কিছুদিন দাম বাড়ার কারণে এখন কিছুটা সংশোধন হচ্ছে। তাই আমি মনে করি, ব্যাংক খাতের এমন অবস্থা থাকবে আরও কিছুদিন। তবে খুব বেশি খারাপ হবে বলে মনে হয় না। এছাড়া ডিসেম্বরে বাজার এমনিতেই ধীরগতিতে থাকে। দেশের বাজারের মূল বৈশিষ্ট্যই হচ্ছে ডে ট্রেডিং। আজকে শেয়ার কিনলে কালকে লাভ পাবÑএমন মনোভাব সবার। দীর্ঘ সময় বিনিয়োগের মনোভাব খুব কম মানুষের মধ্যেই আছে। তাই এ বিষয়ে বিনিয়োগকারীদের আরও সচেতন হওয়া উচিত।

রাজিব সোম বলেন, সবার প্রত্যাশা অনুযায়ী আচরণ করে না বলেই এটিকে পুঁজিবাজার বলা হয়। ব্যাংক খাতের যখন গতিবিধি শুরু হওয়ার কথা, সে সময় আমাদের বাজারে তা হয় না। কিন্তু এ খাতের গতি বৃদ্ধি শুরুর আগে কয়েক বছর ব্যাংকের শেয়ার অনেক বেশি অবমূল্যায়িত অবস্থায় ছিল। তবে এটি হওয়ার কথা নয়। ফলে যেটি হওয়ার কথা নয়, সেটাই হচ্ছে দেশের পুঁজিবাজারে। লক্ষ্য করলে দেখবেন, এই খাতের ১০ টাকার ফেসভ্যালুর শেয়ার সাত-আট টাকায় ট্রেড হচ্ছে। আবার অন্যান্য খাতের ১০ টাকার শেয়ার ২০০-৩০০ টাকায় ট্রেড হচ্ছে। কিন্তু ডিভিডেন্ড ইল্ড হিসাব করলে অন্যান্য খাতের তুলনায় ব্যাংক খাত অনেক ভালো ডিভিডেন্ড দিচ্ছে। তারপরও বিনিয়োগকারীরা সেদিকে যাচ্ছে না। আর এ বিষয়গুলোও বাজারে প্রত্যাশিত নয়। তিনি আরও বলেন, দেশের পুঁজিবাজার কি অধিক দক্ষ না অদক্ষ, নাকি এটি মাঝামাঝি অবস্থায় আছে? একটি দক্ষ বাজারে সাধারণত যে কোনো তথ্য আসলে তার প্রভাবে বাজারের গতিবিধি পরিবর্তন হয়। কিন্তু দেশের পুঁজিবাজারে তা হয় না। তথ্য আসার আগেই মানুষ তা জেনে যায় এবং বাজারের গতিবিধি আগেই পরিবর্তন হয়ে যায়। ফলে আপনি যখন প্রত্যাশা করছেন বাজার গতিশীল হবে কিন্তু দেখা যাবে তা আগেই হয়ে গেছে।

 

শ্রুতি লিখন: রাহাতুল ইসলাম