দক্ষতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই

সিভাসুর অনুষ্ঠানে ইউজিসি চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান বলেছেন, শিক্ষিত তরুণদের নিজেদের দক্ষতাকে শাণিত করতে হবে। দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারলে চাকরি নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। তাছাড়া পরিবর্তিত বিশ্বে টিকে থাকার জন্য দক্ষতা বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই।
গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত ‘টেকনিকস ফর দ্য প্রিপারেশন অব প্লাস্টিনেটেড অর্গানস ফর দ্য অ্যানাটমি মিউজিয়াম’ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
ইউজিসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ২৪০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হয়েছে। আগামী ডিসেম্বরে ওই প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবে। আমি মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণের সময় এই প্রকল্পের সফলতার হার ছিল ৪২ শতাংশ। বর্তমানে এই হার ৯২ শতাংশ।’
অনুষ্ঠানে প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সিভাসুর প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য প্রফেসর ড. নীতীশ চন্দ্র দেবনাথ, প্রফেসর ড. আবুল কাসেম ও প্রফেসর আবদুল হালিম। প্রফেসর ড. লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন। কর্মশালায় চারটি টেকনিক্যাল সেশনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা অংশগ্রহণ করেন।
ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান আরও বলেন, যেকোনো পরিকল্পনা প্রণয়নে বিশেষ করে শিক্ষাক্ষেত্রে উদ্যোগ গ্রহণের সময় গুরুত্ব দিতে হবে; আপনি বাংলাদেশকে কোথায় দেখতে চান? অন্যথায় এর লক্ষ্যচ্যুতি ঘটতে পারে। সরকার শিক্ষার মানোন্নয়নে অগ্রাধিকার দিয়েছে বলে উল্লেখ করে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নে সরকার ২০০ মিলিয়ন ডলারের আরও একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। এটি বাস্তবায়নের কাজ শিগগিরই শুরু হবে।
সিভাসু উপাচার্য প্রফেসর ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে সরকার যে বরাদ্দ দিচ্ছে, তা যথাযথভাবে ব্যয় করা হচ্ছে এবং এর সুফল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন।