প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

দরপতনে এগিয়ে ব্যাংক তথ্যপ্রযুক্তি ও আবাসন খাত

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল সূচকে বড় ধরনের পতনের পাশাপাশি বেশিরভাগ শেয়ারে দরপতন হয়। লেনদেন শুরুর আধঘণ্টার মধ্যে বিক্রির চাপ শুরু হলে সূচকে টানা পতন চলতে থাকে। শেষ পর্যন্ত এ পতন অব্যাহত থাকে। বিক্রির চাপে গতকাল মাত্র ২০ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। প্রায় ৭১ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ থেকে ধারাবাহিক পতনে রয়েছে বাজার। বড় বিনিয়োগকারীর মধ্যে মুনাফা তোলার প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। গতকাল সব খাতেই ছিল দরপতনের প্রতিযোগিতা। এ যেন ছিল কোন খাতে কত বেশি কোম্পানির দরপতন হতে পারে। সবচেয়ে বেশি বিক্রির চাপ ছিল ব্যাংক, তথ্য ও প্রযুক্তি, সেবা ও আবাসন খাতে। তুলনামূলক কম পতন হয়েছে চামড়াশিল্প, খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতে।
মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ বা ১৩৪ কোটি টাকা লেনদেন হয় জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে। বিক্রির চাপ থাকায় এ খাতে ৫৮ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। এ খাতের ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে ৬৬ কোটি টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় চার টাকা ৩০ পয়সা। পাওয়ার গ্রিডের ১৬ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে দুই টাকা। ১৩ শতাংশ লেনদেন হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতের মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সাড়ে ১৬ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর কমেছে ৫৮ টাকা ৭০ পয়সা। সিঙ্গার বিডির ১৫ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে আড়াই টাকা। ওষুধ ও রসায়ন এবং বিমা খাতে ১০ শতাংশ করে লেনদেন হলেও আর কোনো খাতে উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। ওষুধ খাতে ৩৮ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় ৯ শতাংশ বেড়ে জেএমআই সিরিঞ্জ, সাড়ে চার শতাংশ বেড়ে ম্যারিকো, চার শতাংশ বেড়ে রেনাটা দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। ফার্মা এইডসের সোয়া ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৩২ টাকা ২০ পয়সা। ব্যাংক খাতে একমাত্র আল-আরাফাহ্ ব্যাংকের দর বেড়েছে ২০ পয়সা। তথ্য ও প্রযুক্তি, সেবা ও আবাসন, ভ্রমণ ও অবকাশ খাত শতভাগ পতনে ছিল। বিমা খাতে ৮৫ শতাংশ ও আর্থিক খাতে ৮৩ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দরপতনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে ৯টি ছিল বিমা খাতের। পতনের বাজারে একমাত্র ব্যতিক্রম ছিল চামড়া ও শিল্প এবং খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাত। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ফাইন ফুডস দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। চামড়াশিল্প খাতে ৬৭ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ৯ শতাংশের বেশি বেড়ে ফরচুন শুজ দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। কোম্পানিটির সাড়ে ২৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের ২১ কোটি টাকা লেনদেন হয়; দর বেড়েছে ছয় টাকা।

সর্বশেষ..