প্রচ্ছদ শেষ পাতা

দারিদ্র্য বিমোচনে বিশ্বে তৃতীয় বাংলাদেশ: ইউএনডিপি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশ দারিদ্র্য বিমোচনে উল্লেখ করার মতো অগ্রগতি করেছে। এর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে এশিয়ার দেশ ভারত। এর পরই রয়েছে কম্বোডিয়া ও বাংলাদেশ। জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) প্রকাশিত বৈশ্বিক বহুমাত্রিক দারিদ্র্য সূচকে (এমপিআই) এমন তথ্য দিয়েছে সংস্থাটি। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, দারিদ্র্য কমিয়ে আনতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ।
আন্তর্জাতিক সংস্থাটি এ বিষয়ে এমপিআই: ২০১৯ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন গত ১১ জুলাই প্রকাশ করে। জানা গেছে, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)-১ বাস্তবায়নের উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করা হয় এমপিআই। এসডিজির প্রধান লক্ষ্যই হলো বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্য বিমোচন। প্রতিবেদনে বাংলাদেশের এমপিআই মান উল্লেখ করা হয়েছে শূন্য দশমিক ১৯৮।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বিশ্বের ১০১টি দেশকে মারাত্মক বহুমাত্রিক দারিদ্র্যপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হয়। এসব দেশের মধ্যে ৩১টি নিম্ন আয়ের, ৬৮টি মধ্যআয়ের আর দুটি উচ্চআয়ের দেশ। এসব দেশের প্রায় ১৩০ কোটি মানুষ বহুমাত্রিকভাবে দরিদ্র। এমপিআই প্রতিবেদনে দারিদ্র্যের তুলনা করে ১০টি সূচকের মাধ্যমে পরিবর্তন পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। এসব সূচকের মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কাজের মান ও জীবনযাপনের মান।
এ বছরের এমপিআই সূচকে দেখা গেছে, ১০টি দেশের ২০০ কোটি মানুষ এসডিজি-১ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথে পরিসংখ্যানগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি অর্জন করেছে। এগুলোর মধ্যে আটটি দেশের এমপিআই মান কমেছে। তবে সামগ্রিকভাবে এসব দেশের বহুমাত্রিক দরিদ্র মানুষের সংখ্যা কমেছে।
প্রতিবেদন অনুসারে ভারত, কম্বোডিয়া ও বাংলাদেশে উল্লেখ করার মতো দারিদ্র্য কমেছে। এসব দেশের অন্তত ৯টি সূচকে উন্নতি হয়েছে। এসব দেশে প্রাপ্তবয়স্কদের চেয়ে শিশুদারিদ্র্য আরও দ্রুত গতিতে কমেছে। এই তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ, কম্বোডিয়া, হাইতি, ভারত ও পেরু।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দরিদ্র হিসেবে চিহ্নিত ১৩০ কোটি মানুষের মধ্যে প্রায় অর্ধেক ৬৬ কোটি ৩০ লাখ মানুষের বয়স ১৮ বছরের নিচে। আর ৪২ কোটি ৮০ লাখ মানুষের বয়স ১০ বছরের নিচে। এসব শিশুর প্রায় ৮৫ শতাংশই বাস করে দক্ষিণ এশিয়া ও সাব-সাহারা আফ্রিকা অঞ্চলে।

 

সর্বশেষ..