সম্পাদকীয়

দেশের সব মানুষকে বিদ্যুৎ সেবার আওতায় আনুন

প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক সভ্য জগতের অপরিহার্য অনুষঙ্গ বিদ্যুৎ। বিদ্যুৎ ছাড়া একটি মুহূর্ত কল্পনা করা যায় না। বিশ্বের সব দেশই বিদ্যুতের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে। গুরুত্ব বিবেচনায় আমাদের সরকারও ২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিগুলো শুরু করেছে পাঁচ মিনিটেই বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার অভিনব কর্মসূচি আলোর ফেরিওয়ালা। এ কর্মসূচির আওতায় গ্রামে গ্রামে রিকশায় বিল বোর্ড ও ফেস্টুন ঝুলিয়ে সংযোগ দিচ্ছেন পল্লী বিদ্যুতের কর্মীরা। শনিবার ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে স্বল্প বিরতির আন্তঃনগর ট্রেন পঞ্চগড় এক্সপ্রেসের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মেট্রোরেলের পর বিদ্যুৎচালিত ট্রেনও চালু করা হবে। এর আগের দিন প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়, দুই কোটি মানুষ এখনও বিদ্যুৎ সুবিধার আওতার বাইরে। বিদ্যুৎবিহীন জনগোষ্ঠীর শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ।
গতকাল শেয়ার বিজের এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত কয়েক বছরে দেশে বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী দ্রুত বাড়লেও জনগোষ্ঠীর বড় একটি অংশ এখনও রয়ে গেছে বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে। বর্তমানে এর সংখ্যা প্রায় দুই কোটি। এতে বিদ্যুৎবিহীন জনগোষ্ঠীর শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশের নাম। এটি বর্তমান সরকারের জন্য স্বস্তিকর নয়।
বিশ্বব্যাংক বলছে, ২০১০ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ গ্রাহক বেড়েছে প্রতি বছর প্রায় চার দশমিক সাত শতাংশ হারে। এতে বিশ্বে দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানকারী শীর্ষ ২০টি দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশ। তারপরও তখন প্রায় এক কোটি ৯৮ লাখ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে ছিল।
বিদ্যুৎ উৎপাদনে সাফল্য অর্জন করলেও এক বিপুল জনগোষ্ঠী বিদ্যুৎ পরিষেবার বাইরে থাকায় সরকারকে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিতে হবে। লক্ষণীয় যে, উৎপাদন বাড়াতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিলেও এখন চাহিদা ও উৎপাদনের মধ্যে বড় ব্যবধান বিদ্যমান, রয়েছে অবকাঠামো দুর্বলতাও।
বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়লেও সংকট নিরসনে তা যথেষ্ট নয়। বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিচালন, সঞ্চালন ও বিতরণ পর্যায়ে সিস্টেম লসের মধ্য দিয়ে গ্রাহকের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে আরও কম।
বিদ্যুৎ সংকট নিরসনে স্থায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র অপেক্ষাকৃত ব্যয়বহুল হলেও এটির প্রতি সরকারের আগ্রহ বেশি। অথচ এটি থেকে কাক্সিক্ষত সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। এগুলোর ওপর নির্ভরতা কমিয়ে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর সর্বোচ্চ উৎপাদন নিশ্চিত করার পাশাপাশি নির্মীয়মাণ বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো যাতে নির্ধারিত সময়ে উৎপাদনে আসতে পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে। এতে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান সম্ভব এবং বেশি করে নতুন সংযোগ দেওয়া যাবে বলে আমরা মনে করি।

সর্বশেষ..