কোম্পানি সংবাদ

দ্বিতীয় দিনেও বড় দরপতন অব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে উভয় বাজারে টানা পতন হয়েছে সূচকের। সে সঙ্গে কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারদর। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সবগুলো সূচক পতনের পাশাপাশি বেশিরভাগ শেয়ারদর কমেছে। গতকাল লেনদেনের শুরু থেকে বিক্রির চাপ শুরু হয়। শেষ পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকে। তবে বেলা সাড়ে ১১টার পর সূচকের সামান্য উত্থান হয়ে মোটামুটি সমান্তরাল গতিতে চললেও শেষ ৩০ মিনিটে ফের পতন হয়। শেষ পর্যন্ত ৫৫ পয়েন্ট পতন হয়। এদিন ডিএসইতে ৬৬ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ২১ শতাংশ কোম্পানির। অন্যদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক, শেয়ারদর ও লেনদেনে একই চিত্র লক্ষ করা যায়।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫৫ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট বা এক দশমিক শূন্য দুই শতাংশ কমে পাঁচ হাজার ৩৭৫ দশমিক ২৯ পয়েন্টে অবস্থান করে।
ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ১১ দশমিক ৪১ পয়েন্ট বা দশমিক ৯২ শতাংশ কমে এক হাজার ২২৩ দশমিক ৯৯ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৫ দশমিক ৭০ পয়েন্ট বা দশমিক ৮২ শতাংশ কমে এক হাজার ৮৮৯ দশমিক ৩৯ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসইর বাজার মূলধন ফের তিন লাখ কোটির ঘরে নেমে যায়। বাজার মূলধন হয় তিন লাখ ৯৬ হাজার ৮৫৭ কোটি ছয় লাখ ৭৭ হাজার টাকা। ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় ৫৩৫ কোটি ২৭ লাখ ৮৩ হাজার ৬২২ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৫৩৪ কোটি ৩১ লাখ শূন্য ৯ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ৯৬ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। এদিন ১৬ কোটি ১১ লাখ ৭০ হাজার ৫০৫টি শেয়ার এক লাখ ৫০ হাজার ১৩০ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৫৩ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭৭টির, কমেছে ২৩৫টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৪১টির দর।
গতকাল টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানিটির ১৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর কমেছে ৯ টাকা। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা মুন্নু সিরামিকের ১৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১২ টাকা ২০ পয়সা। নিউ লাইন ক্লথিংসের ১৪ কোটি শূন্য ৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৮০ পয়সা। এর পরের অবস্থানে থাকা ড্রাগন সোয়েটারের ১২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৫০ পয়সা। এছাড়া সিলকো ফার্মার ১১ কোটি ৭০ লাখ টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১১ কোটি ১৪ লাখ টাকার, জেএমআই সিরিঞ্জের ১০ কোটি ৮১ লাখ টাকার, লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের ৯ কোটি ৮৮ লাখ টাকার, নর্দান ইন্স্যুরেন্সের আট কোটি ৭১ লাখ টাকার, ফরচুন শুজের আট কোটি ৫০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।
প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে দর বৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স। এরপর রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সের দর ৯ দশমিক ৭৮ শতাংশ, প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের ৯ দশমিক ৬১ শতাংশ, নর্দান ইন্স্যুরেন্সের ৯ দশমিক ৫৪ শতাংশ, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্সের আট দশমিক ৫৪ শতাংশ, ইসলামিক ইন্স্যুরেন্সের সাত দশমিক ৮২ শতাংশ, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের সাত দশমিক ৮০ শতাংশ, ড্রাগন সোয়েটারের সাত দশমিক ২৯ শতাংশ, এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্সের সাত দশমিক ১৪ শতাংশ, কর্ণফুলী ইন্স্যুরেন্সের দর সাত দশমিক শূন্য তিন শতাংশ বেড়েছে।
অন্যদিকে ১১ দশমিক ৪৮ শতাংশ কমে দরপতনের শীর্ষে উঠে আসে ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড। ন্যাশনাল ব্যাংকের দর ১১ শতাংশ, ফাস ফাইন্যান্সের পাঁচ দশমিক ৮৮ শতাংশ, আরএন স্পিনিংয়ের পাঁচ দশমিক ৮৮ শতাংশ, জাহিন টেক্সের পাঁচ দশমিক ৩৭ শতাংশ, ইউনাইটেড ফাইন্যান্সের চার দশমিক ৬১ শতাংশ, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের চার দশমিক ৫০ শতাংশ, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের চার দশমিক ৪৫ শতাংশ, জিএসপি ফাইন্যান্সের চার দশমিক ৪১ শতাংশ, সাউথইস্ট ব্যাংকের দর চার দশমিক ৩১ শতাংশ কমেছে।
সিএসইতে গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৮২ দশমিক ৫২ পয়েন্ট বা দশমিক ৮১ শতাংশ কমে ৯ হাজার ৯৯১ দশমিক শূন্য আট পয়েন্ট এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৩৫ দশমিক ৬১ পয়েন্ট বা দশমিক ৮১ শতাংশ কমে ১৬ হাজার ৪৮৮ দশমিক ৮২ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল সর্বমোট ২৭০টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৬৯টির, কমেছে ১৮০টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২১টির দর।
সিএসইতে এদিন ৩৩ কোটি ৯৪ লাখ ৪৮ হাজার ৭৯২ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ২৯ কোটি ২৫ লাখ ৮৭ হাজার ১২৬ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে চার কোটি ৬৮ লাখ টাকা। সিএসইতে গতকাল লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে বার্জার পিবিএল। কোম্পানিটির সাত কোটি ৫১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর গ্রামীণফোনের পাঁচ কোটি ১৪ লাখ টাকার, সিলকো ফার্মার এক কোটি ৫৮ লাখ টাকার, রানার অটোর এক কোটি ৫১ লাখ টাকার, উত্তরা ব্যাংকের এক কোটি ২৩ লাখ টাকার, নর্দান ইন্স্যুরেন্সের এক কোটি ১৯ লাখ টাকার, ড্রাগন সোয়েটারের ৯২ লাখ টাকার, ভিএফএস থ্রেডের ৫২ লাখ টাকার, ন্যাশনাল ব্যাংকের ৪৯ লাখ টাকার, মুন্নু সিরামিকের ৪৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

সর্বশেষ..