দ্রুত টাইপ করতে চাইলে…

কম্পিউটার ছাড়া আধুনিক বিশ্ব অচল। এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে যে কাজই করতে চান না কেন, আপনাকে দ্রুত টাইপ করা জানতে হবে। বোঝাই যাচ্ছে, টাইপ পারা একটি দক্ষতা। টাইপিংয়ে পটু হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। দ্রুত টাইপ করতে পারলে কর্মক্ষেত্রে আপনার কদর বাড়বে। হ্রাস পাবে সময়ের অপচয়। তাই জেনে নিন দ্রুত টাইপ করার কয়েকটি উপায়।

আরামদায়ক জায়গা
দ্রুত টাইপ করার জন্য প্রয়োজন স্বস্তিদায়ক জায়গা। কাজ করে মজা পান, এমন স্থান প্রথমে নির্বাচন করুন। আরামদায়ক জায়গায় দ্রুত টাইপ করা যায়। এজন্য আপনার সুবিধামতো স্থানে রাখুন কম্পিউটারটি। ল্যাপটপের বেলায় তা কোলে কিংবা টেবিলে যেখানে সুবিধা মনে হয়, সেখানে রাখতে পারেন।
সঠিকভাবে বসা
দ্রুত টাইপ করার জন্য ঠিক হয়ে বসা জরুরি। সোজা হয়ে বসে কবজি যেন কী-বোর্ড বরাবর থাকে। এতে ঠিকমতো চালাতে পারবেন কীগুলো। বেশি ঝুঁকে টাইপ করবেন না। প্রথম নিয়মটি অনুসরণ করে আরামদায়ক উচ্চতায় বসে টাইপ করুন। কখনও কী-বোর্ডের দিকে তাকাবেন না।

হাত বা আঙুল রাখুন সঠিক স্থানে
দ্রুততার সঙ্গে টাইপের জন্য কী-বোর্ডের ওপর ঠিকমতো হাত বা আঙুল রাখতে হবে। সাধারণত কী-বোর্ডের ওপর আমরা বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই সঠিকভাবে হাত রাখি না। বাঁ হাতের তর্জনিতে রাখুন ‘এফ’ কী, মধ্যমায় ‘ডি’, অনামিকায় ‘এস’ ও করে আঙুলে ‘এ’। ডান হাতের তর্জনি রাখুন ‘জে’, মধ্যমায় ‘কে’, অনামিকায় ‘এল’ ও করে আঙুল রাখুন ‘সেমিকোলন’ কীতে। বাঁম ও ডান হাতের বৃদ্ধাঙুল রাখুন স্পেস বারে।
টাচ টাইপিং শেখা
শুরুতে টাচ টাইপিং কঠিন মনে হতে পারে। তবে দক্ষ হয়ে গেলে টাচপ্যাড ব্যবহার করে দ্রুত টাইপ করতে পারবেন।

অনুশীলন
প্র্যাকটিস বা অনুশীলনের বিকল্প নেই। ওপরের নিয়মগুলো জানার পর বিভিন্ন শব্দ টাইপ করুন।
‘এএসডিএফ’ লিখে স্পেস দিয়ে ‘জেকেএল’ টাইপ করুন। এরপর বড় হাতের অক্ষরে এ অক্ষরগুলো টাইপ করুন। এরপর নিচের সারির কীগুলোতে আঙুল রেখে সেগুলো টাইপ করুন। পরে ওপরের সারিতে আঙুল রেখে কীগুলো টাইপ করতে হবে।
ধৈর্য ধরে যত টাইপ করবেন, ততই দ্রুত ও নির্ভুল হবে।