হোম কোম্পানি সংবাদ ধারাবাহিক উত্থানে সূচক ও বাজার মূলধন

ধারাবাহিক উত্থানে সূচক ও বাজার মূলধন


Warning: date() expects parameter 2 to be long, string given in /home/sharebiz/public_html/wp-content/themes/Newsmag/includes/wp_booster/td_module_single_base.php on line 290

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে পুঁজিবাজারের সূচক ও লেনদেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল সবগুলো সূচক ও লেনদেন বেড়ছে। তবে বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমেছে। বাজার মূলধনও বেড়েছে। ফলে ডিএসইতে তিনটি সূচক ও বাজার মূলধনের নতুন উচ্চতায় ওঠার রেকর্ড অব্যাহত রয়েছে। গতকাল লেনদেনের শুরুতে সূচক বাড়লেও এরপরই বিক্রির চাপ বেড়ে যায়। ফলে নিম্নমুখী হতে থাকে সূচক। বেলা ১২টার পর কেনার চাপ বাড়লে ফের ঊর্ধ্বমুখী হয়। লেনদেন শেষে সূচক প্রায় ৫২ পয়েন্ট বেড়ে যায়। অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সবকটি সূচক ও লেনদেন বেড়েছে। এদিন সিএসই’র সার্বিক সূচক সিএএসপিআই, সিএসই ৫০, সিএসআই ও বাজার মূলধন নতুন উচ্চতায় ওঠার রেকর্ড গড়ে।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, এদিন ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫২ দশমিক ৫০ পয়েন্ট বা দশমিক ৮৫ শতাংশ বেড়ে ছয় হাজার ১৬৭ দশমিক ৪৯ পয়েন্টে অবস্থান করে। এটি সূচকটির সর্বোচ্চ অবস্থান। ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ২০ দশমিক ৩৮ পয়েন্ট বা এক দশমিক ৫১ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৩৬৮ দশমিক ২৪ পয়েন্টে আর ডিএস৩০ সূচক ২২ দশমিক ৯৩ পয়েন্ট বা এক দশমিক শূন্য পাঁচ শতাংশ বেড়ে দুই হাজার ২০১ দশমিক ৪৩ পয়েন্টে অবস্থান করে। গতকাল ডিএসই’র বাজার মূলধন চার লাখ ১২ হাজার ১৮৭ কোটি ৩৮ লাখ ৯৮ হাজার ৮৩ টাকা হয়। যা সবকটি সূচক ও বাজার মূলধনের রেকর্ড অবস্থান।

ডিএসইতে গতকাল লেনদেন হয় এক হাজার ২৫৯ কোটি ৯০ লাখ ৩৬ হাজার টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় এক হাজার ১৪৪ কোটি ২৭ লাখ ৩৮ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ১১৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এদিন ৩৯ কোটি ৪৩ লাখ ২৬ হাজার ৪৪১টি শেয়ার এক লাখ ৮১ হাজার ১৭ বার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩২৯টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৩টির, কমেছে ১৫৮টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৮টির দর।

টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে ছিল লংকাবাংলা ফাইন্যান্স। ৬১ কোটি ৬৮ লাখ টাকায় ৯৭ লাখ ৬৩ হাজার ৪৬টি শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর ২ টাকা ২০ পয়সা বেড়েছে। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল প্রিমিয়ার ব্যাংক, স্কয়ার ফার্মা, এনবিএল, লাফার্জ সুরমা, জিপি, সামিট পাওয়ার, ফরচুন শুজ, আল-আরাফাহ্ ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক শেয়ার লেনদেন হয় ন্যাশনাল ব্যাংকের। কোম্পানিটির দুই কোটি ২৮ লাখ ৭৯ হাজার ৬৩১টি শেয়ার ৩১ কোটি ৮৬ লাখ টাকায় লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোয় ছিল প্রিমিয়ার ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক, আল-আরাফাহ্ ব্যাংক, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, আইএফআইসি, ফাস ফাইন্যান্স, সিঅ্যান্ডএ টেক্স, ইউসিবি।

৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ দর বেড়েছে লাফার্জ সুরমা সিমেন্টের। আট দশমিক ৫০ শতাংশ বেড়েছে মেঘনা সিমেন্টের। এরপর সাত দশমিক ৮৯ শতাংশ বাড়ে সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের। মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ সাত দশমিক ৬৪ শতাংশ ও প্রভাতি ইন্স্যুরেন্স বেড়েছে সাত দশমিক ১৪ শতাংশ। অন্যদিকে ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ দর কমেছে দুলামিয়া কটনের। বিএসআরএম লিমিটেড কমেছে সাত দশমিক ৯০ শতাংশ, সাভার রিফ্র্যাক্টরিজ সাত দশমিক ৫৩ শতাংশ, শ্যামপুর সুগার ছয় দশমিক ৫১ শতাংশ ও উসমানিয়া গ্লাস পাঁচ দশমিক ৫২ শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) গতকাল সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৮৮ পয়েন্ট বেড়ে ১১ হাজার ৫৫৬ পয়েন্টে, সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১৪১ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট বেড়ে ১৯ হাজার ১১৫ পয়েন্টে অবস্থান করে। এটি সূচকটির সর্বোচ্চ অবস্থান। গতকাল দিনজুড়ে ২৬৭টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে ১০৯টির দর বেড়েছে, কমেছে ১৩৪টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৪টির দর।

এদিন ৭৭ কোটি ৫৮ লাখ ৮৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৫২ কোটি ৭৩ লাখ ৬৫ হাজার টাকার শেয়ার ও ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ২৪ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। সিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে ছিল লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট। কোম্পানিটির পাঁচ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এরপর স্কয়ার ফার্মার চার কোটি ৪৩ লাখ টাকার, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের চার কোটি ২২ লাখ, জিপি তিন কোটি ৯৩ লাখ, এনবিএল তিন কোটি ২৮ লাখ, আইএফআইসি দুই কোটি ৪৬ লাখ, ইউসিবি এক কোটি ৯১ লাখ, ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংকের এক কোটি ৮২ লাখ, অগ্নি সিস্টেম এক কোটি ৬৭ লাখ এবং আইডিএলসির এক কোটি ৬২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।