নগদ লভ্যাংশ পাঠিয়েছে পদ্মা অয়েল

নিজস্ব প্রতিবেদক: তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানি পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাববছরে ঘোষিত নগদ লভ্যাংশ বাংলাদেশ ইলেক্ট্রনিক ফান্ডস ট্রান্সফার নেটওয়ার্কের (বিইএফটিএন) মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের নিজ নিজ ব্যাংক হিসাবে পাঠিয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

২০১৭ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি ১১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২০ টাকা ৬৮ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) ১০৩ টাকা ৬০ পয়সা। এটি আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে ১৯ টাকা সাত পয়সা ও ৯২ টাকা ৯২ পয়সা।

গতকাল কোম্পানির শেয়ারদর এক দশমিক ৮৭ শতাংশ বা চার টাকা ৪০ পয়সা কমে প্রতিটি সবশেষ ২৩০ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ২৩০ টাকা ৮০ পয়সা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ২২৮ টাকা ২০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ২৪১ টাকায় হাতবদল হয়। ওই দিন ১৫ হাজার ৬৬৪টি শেয়ার ১১৬ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৩৬ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। গত এক বছরে শেয়ারদর ২২৫ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ২৬৯ টাকার মধ্যে হাতবদল হয়।

চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ইপিএস হয়েছে ছয় টাকা ৩২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল পাঁচ টাকা ৮০ পয়সা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় ইপিএস বেড়েছে ৫২ পয়সা। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এনএভি হয়েছে ১০৯ টাকা ৯২ পয়সা, যা  আগের বছর ছিল ৯৮ টাকা ৭২ পয়সা।

কোম্পানিটি ১৯৭৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরে ১০০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে, যা আগের বছরের সমান। এ সময়ে ইপিএস হয়েছে ১৯ টাকা সাত পয়সা এবং এনএভি ৯২ টাকা ৯২ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে যার পরিমাণ ছিল যথাক্রমে ১৯ টাকা ৬৩ পয়সা ও ৮৩ টাকা ৮৫ পয়সা। ১০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৯৮ কোটি ২৩ লাখ ২০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৯১৯ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

কোম্পানির নয় কোটি ৮২ লাখ ৩২ হাজার ৭৫০টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী মোট শেয়ারের মধ্যে শূন্য দশমিক শূন্য এক শতাংশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের কাছে, সরকারের কাছে ৫০ দশমিক ৩৫ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ৩৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ, বিদেশি দুই দশমিক ৪৮ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৩ দশমিক ৪১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারমূল্য আয় (পিই) অনুপাতে ১১ দশমিক ১৬ এবং হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ৯।