নীরবের গ্লোবাল ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর থাকবেন না প্রিয়াঙ্কা

 

শোবিজ ডেস্ক: সত্যিই কী তাকে দিয়ে কাজ করিয়ে টাকা দেননি গয়না বিক্রেতা সংস্থা নীরব মোদি? সাম্প্রতিক এ জল্পনা নিয়ে ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ কিছুই এখনও বলেননি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। কিন্তু নীরবের সংস্থার সঙ্গে সব ধরনের চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিলেন নায়িকা এবং তার পক্ষ থেকে জানানো হলো পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক বা পিএনবির ঘটনার জেরেই এ সিদ্ধান্ত। এ-সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করেছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা।

প্রিয়াঙ্কা এখন নীরবের সংস্থার গ্লোবাল ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর। গত বছর জানুয়ারি মাসে এ-সংক্রান্ত চুক্তি সই হয়েছিল। শুক্রবার প্রিয়াঙ্কার মুখপাত্র এক লিখিত বিবৃতিতে বলেন, ‘চলতি বিতর্কের জেরে নীরব মোদির ব্র্যান্ডের সঙ্গে সব লিখিত চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।’ এ ব্যাপারে আইনি পরামর্শ নেওয়া শুরু হয়ে গেছে। প্রিয়াঙ্কার মুখপাত্র আরও জানিয়েছেন, নীরব মোদির বিরুদ্ধে প্রিয়াঙ্কা মামলা করেছেন বলে বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে খবর হয়েছিল। কিন্তু সে খবরের কোনো ভিত্তি নেই। নীরবের সংস্থার গয়নার বিজ্ঞাপনে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সঙ্গে স্ক্রিন শেয়ার করেছিলেন সিদ্ধার্থ মালহোত্রা। নীরবের সংস্থার সঙ্গে সিদ্ধার্থের চুক্তি ইতোমধ্যেই শেষ হয়ে গেছে। যদিও এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি  সিদ্ধার্থ স্বয়ং।

প্রসঙ্গত, সিবিআই সূত্রের খবর, ২০১১-এ মুম্বাইয়ে পিএনবি’র ব্র্যাডি হাউস শাখা থেকে কোনো নিয়মকানুন ছাড়াই বিরাট অঙ্কের ঋণের গ্যারান্টি হাতিয়ে নেয় নীরব ও তার সংস্থা ফায়ারস্টার ডায়মন্ড। লক্ষ্য ছিল হংকং থেকে হীরা কেনা। একই নথি দেখিয়ে আবার এলাহাবাদ ব্যাংক, অ্যাক্সিস ব্যাংক ও আরও কিছু ব্যাংকের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ জোগাড় করেন নীরব। ২০১৭ সালের মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংক নীরব মোদি, তার মামা মেহুল চোকসি ও অন্যান্য আত্মীয়র সংস্থাকে ঋণ ও গ্যারান্টি খাতে ১৭ হাজার ৬৩২ কোটি টাকা দিয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত ওই অঙ্কও ছাড়িয়ে যাবে বলে ইঙ্গিত কর দফতরের।