পরিস্থিতি পরিদর্শনে রাখাইনে যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক: মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ থেকে তাদের নিজ দেশে প্রত্যাবাসন শুরুর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি দেখতে মিয়ানমার সফর করবেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র সচিব মো. শহিদুল হক।
গতকাল ঢাকায় মেরিটাইম কাউন্টার টেরোরিজম বিষয়ে এক কর্মশালার উদ্বোধনের পর পররাষ্ট্র সচিব সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপাকালে সফরের তথ্য জানিয়ে বলেন, এই সফর শিগগিরই হবে। তিনি বলেন, আবাসন সুবিধা, চলাফেরা ও জীবনযাত্রাসহ প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার অগ্রগতি দেখতে মিয়ানমার যাবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
সম্প্রতি বেইজিংয়ে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির দফতরের মন্ত্রী কিয়া তিন্ত সোয়ে এবং চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-এর সঙ্গে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকের পর এই সিদ্ধান্ত এলো।
এদিকে চীনের রাষ্ট্রদূত ঝ্যাং জুয়ো বলেছেন, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোই এখন সবচেয়ে জরুরি বিষয় বলে মনে করছে তার দেশ। তিনি জানিয়েছেন, একটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার মতৈক্যে পৌঁছেছে যে, তিন ধাপে রাখাইনের পরিবেশ উন্নয়নে তাদের চেষ্টা করা উচিত। ধাপগুলো হলোÑসহিংসতা বন্ধ, যত দ্রুত সম্ভব প্রত্যাবাসন শুরু এবং সেখানে উন্নয়ন কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়া।
মিয়ানমারে মানবাধিকার পরিস্থিতিবিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংহি লি গত রোববার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, রাখাইনে এখনও নৃশংসতা চলায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের আলোচনা একেবারেই সময়োচিত নয়।