সারা বাংলা

পীরগঞ্জে জেলা পরিষদের বেদখল জমি উদ্ধার

প্রতিনিধি, পীরগঞ্জ (রংপুর): রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার খালাশপীর হাটসংলগ্ন জেলা পরিষদের বেদখল হয়ে যাওয়া দুই কোটি টাকা মূল্যের জমি অবশেষে উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্জয় কুমার মহন্তের নেতৃত্বে জেলা পরিষদের জমিতে অবৈধভাবে গড়ে উঠা আধাপাকা স্থাপনা ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।
এর আগে জেলা পরিষদ ওই জমি থেকে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদের নোটিস দিয়ে প্রস্তাবিত মার্কেট নির্মাণের সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছিল। জেলা পরিষদের কয়েকজন অসাধু কর্মচারীদের যোগসাজশে জমিটি আবারও বেদখল হয়ে যায়।
উপজেলা ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলা পরিষদের ১৩ শতক জমি সৌর্য্যুয়া লাল চৌহান নামে এক ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে বাসা ও ছয়টি দোকান নির্মাণ করে অবৈধভাবে দখল করে রেখেছিল। এছাড়াও জমিটিতেই অপর দখলদার মজিবর রহমান একটি বাসা, পাঁচটি দোকার ঘর এবং শহীদ গাছু নামে এক ব্যক্তি বাসা ও দুটি দোকানঘর নির্মাণ করেন। গত বছর সৌর্য্যুয়া লাল চৌহান তার দখলকৃত জমির কয়েকটি দোকানের পজেশন মোটা অঙ্কের টাকায় বিক্রি করলে ক্রেতারা পাকা দোকান ঘর নির্মাণ শুরু করে। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে বিরোধ দেখা দিলে গত বছরের ৮ আগস্ট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ছাফিয়া খানম, জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার, জেলা পরিষদের ১৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বার রিয়াজুল ইসলাম রনিসহ কয়েকজন গিয়ে বেদখল হয়ে যাওয়া জমি থেকে অবৈধ দখলকারীদের সাত দিনের মধ্যে উচ্ছেদের নোটিস দেন। এরপর সেখানে প্রস্তাবিত মার্কেট নির্মাণের লক্ষ্যে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু সাইনবোর্ড টাঙানো থাকলেও উল্টো জমিটি আবারও তারা দখলে নেন।
গতকাল বুধবার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্জয় কুমার মহন্ত, রংপুর জেলা পরিষদের প্রকৌশলী সোহেল রানা অভিযান চালিয়ে জেলা পরিষদের বেদখল হয়ে যাওয়া জমি উদ্ধার করেন। এ সময় জেলা পরিষদের সদস্য রিয়াজুল ইসলাম রনি, শহিদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ..



/* ]]> */