পুনরায় চালু ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রায় ২৪ বছর বন্ধ থাকার পর পুনরায় চালু হলো বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল করপোরেশনের (বিএসইসি) আওতাধীন রাষ্ট্রায়ত্ত রি-রোলিং কারখানা ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস লিমিটেড। গতকাল বৃহস্পতিবার শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু টঙ্গীতে প্রতিষ্ঠানটির পুনঃচালুকরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।
শিল্প সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ্র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি
আজমত উল্লা খান, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, বিএসইসির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, জাতীয় শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খান সিরাজুল ইসলাম ও ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস লিমিটেডের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনিরুজ্জামান খান বক্তব্য রাখেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার আগে টঙ্গী, নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় গড়ে ওঠা কোনো কল-কারখানার মালিকানা বাঙালির ছিল না। এসব কারখানার মালিকানা অবাঙালি বিহারিদের হাতে ছিল। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিহারিদের এসব শিল্প-কারখানা জাতীয়করণের মাধ্যমে হাজার হাজার শ্রমিক-কর্মচারীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছিলেন। ৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর গোষ্ঠীগত স্বার্থে রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলোকে পানির দরে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুনরায় ক্ষমতায় এসে এগুলো রাষ্ট্রীয় মালিকানায় ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি সব বন্ধ কারখানা চালুর উদ্যোগ নেন। এ উদ্যোগের অংশ হিসেবে ১৯৯৪ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস লিমিটেড পুনরায় চালু করা হলো।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস লিমিটেডকে পূর্ণাঙ্গ শিল্পে পরিণত করা হবে। এ শিল্পকে বৃহৎ আকারে রূপ দিতে এর অন্য দুটি ইউনিটও চালু করা হবে। তিনি এ কারখানা লাভজনক করতে পণ্য বৈচিত্র্যকরণ ও পরিবেশবান্ধব পণ্য উৎপাদনের প্রয়াস জোরদারের পরামর্শ দেন।
এ লক্ষ্যে তিনি প্রতিষ্ঠানটির সব শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তাকে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা, নিষ্ঠা, দক্ষতা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। তিনি বর্তমান সরকারকে শিল্প ও শ্রমিকবান্ধব সরকার হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, শিল্পায়ন ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির চলমান ধারা অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই।
অনুষ্ঠানে বক্তারা দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা এ কারখানা চালুর জন্য বর্তমান সরকারের প্রশংসা করেন। তারা বলেন, এটি চালুর ফলে বাজারে রডের মূল্য স্থিতিশীল থাকবে এবং জনগণ উপকৃত হবে। তারা পরিবেশ সুরক্ষায় গাজীপুর জেলায় অবস্থিত সব শিল্প-কারখানায় ইটিপি স্থাপন বাধ্যতামূলক করার তাগিদ দেন। মজুরি কমিশন ঘোষণার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রমিকদের স্বার্থ সুরক্ষায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন বলে তারা মন্তব্য করেন।
উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে রাষ্ট্রপতির এক আদেশে ঢাকা স্টিল ওয়ার্কস লিমিটেড জাতীয়করণ করা হয়। ওই সময় বিএসইসির ওপর এটি পরিচালনার দায়িত্ব ন্যস্ত করা হয়। ১৯৯৪ সালে বিএনপি সরকার প্রতিষ্ঠানটি পে-অফ ঘোষণা করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ২০১৬ সালে কারখানাটি পুনরায় চালুর প্রক্রিয়া শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ গ্রহণ, ভূমি উন্নয়ন কর, পৌরকর ও বিভিন্ন বকেয়া বিল পরিশোধ, পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র, ফায়ার লাইসেন্স, বিদ্যুৎ লাইসেন্সিং বোর্ডের ছাড়পত্রসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হালনাগাদ করার পর গতকাল এটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হলো।