কোম্পানি সংবাদ

প্রান্তিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ১০ কোম্পানি

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি হিসাববছরের প্রান্তিক (জানুয়ারি-মার্চ) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ১০ কোম্পানি। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
আইটি কনসালট্যান্টস: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৩৬ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৩৯ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৫ টাকা ৮১ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল ১৬ টাকা ১৬ পয়সা।
রেনউইক যজ্ঞেশ্বর: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৪৯ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ২১ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৯ টাকা পাঁচ পয়সা লোকসান, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে লোকসান ছিল ২২ টাকা ৫৭ পয়সা।
মেঘনা পিইটি ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে আট পয়সা, যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ১০ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে তিন টাকা ৮২ পয়সা লোকসান, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল তিন টাকা ৫০ পয়সা লোকসান।
ম্যাকসন্স স্পিনিং: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১১ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ১৫ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৮ টাকা ৬৬ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল ১৯ টাকা ১০ পয়সা।
মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে এক টাকা ৪০ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল এক টাকা ৬৩ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ৪৮ টাকা ৬৩ পয়সা (লোকসান), যা ২০১৮ সালের ৩১ মার্চে ছিল ৪২ টাকা ৪৪ পয়সা (লোকসান)।
শাইনপুকুর সিরামিকস: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৯ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৯ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ২৮ টাকা ৯১ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩১ মার্চে ছিল ২৮ টাকা ৪৮ পয়সা।
ইমাম বাটন: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে সাত পয়সা, যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ৩৩ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে পাঁচ টাকা ৫২ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল পাঁচ টাকা ৮১ পয়সা।
বিডিকম অনলাইন: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৬০ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৪৮ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৫ টাকা ৭১ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল ১৪ টাকা ৮১ পয়সা।
রংপুর ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রডাক্টস: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ২০ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ২৭ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ১৫ টাকা ২১ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল ১৫ টাকা ৫৪ পয়সা।
কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজ: তৃতীয় প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৩০ পয়সা। ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ৩২ টাকা ৯৩ পয়সা, যা ২০১৮ সালের ৩০ জুনে ছিল ৩২ টাকা ৩৭ পয়সা।

সর্বশেষ..