বন্যায় টাঙ্গাইলে রেলসেতুতে ধস

শেয়ার বিজ প্রতিনিধি, টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বন্যার ফলে যমুনা নদীর শাখা পৌলী নদীর ওপর অবস্থিত পৌলী রেলসেতুর নিচে মাটি সরে যাওয়ায় রাজধানী ঢাকার সঙ্গে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

গতকাল সকালে কালিহাতী উপজেলার পৌলী এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থলে নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে ঢাকাগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি আটকে পড়ে। এদিকে ঘটনার পর দুপুরে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ও রেল মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে, আজ সোমবার বিকাল নাগাদ রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হবে।

এদিকে স্থানীয় এলাকাবাসীদের সাহসিকতায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে নীলসাগর ট্রেনটি। বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব রেলওয়ে সেতুসূত্র জানায়, গতকাল রোববার সকালে নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী নীলসাগর ট্রেনটি জেলার কালিহাতী উপজেলার পৌলী নদীর ওপর নির্মিত রেলব্রিজের কাছে পৌঁছালে ট্রেনটির চালক স্থানীয় কিছু লোকজনের ওড়ানো একটি লাল নিশানা দেখতে পেয়ে ট্রেন থামিয়ে দেন। পরে পৌলী ব্রিজে প্রায় ৩০ ফুট গভীর গর্ত দেখতে পান ট্রেনটির দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা।

টাঙ্গাইলের ঘারিন্দা রেলস্টেশন মাস্টার মো. জালাল উদ্দিন জানান, সকাল সাড়ে ৫টার দিকে খুলনা থেকে ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনটি যমুনার শাখা নদী পৌলী নদীর ওপর অবস্থিত কালিহাতী উপজেলার পৌলী রেলব্রিজ এলাকা অতিক্রম করার পরপরই পৌলী রেলব্রিজের ৩০ ফুট এলাকাজুড়ে অ্যাপ্রোচ অংশ ধসে পরে। বন্যার পানিতে মাটি নরম হয়ে যাওয়ায় এই ঘটনা ঘটেছে। পরে স্থানীয়রা এটি দেখার পর রেললাইনে লাল নিশান উড়িয়ে দেন। পরে নীলফামারী থেকে আসা নীলসাগর এক্সপ্রেস সেখানে থামিয়ে দেয়া হয়। রেললাইনের নিরাপত্তাজনিত কারণে ঢাকার সঙ্গে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব স্টেশনে ঢাকাগামী রংপুর এক্সপ্রেস, বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম স্টেশনে দিনাজপুর থেকে ঢাকাগামী একতা এক্সপ্রেস এবং ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনগুলো জয়দেবপুর রেলস্টেশনে আটকে পড়ে আছে।

এদিকে ঘটনার পর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পাকশী ও ঢাকা থেকে রেলওয়ে প্রকৌশল বিভাগের কর্মীরা ক্ষতিগ্রস্ত রেললাইন মেরামত শুরু করেন। পরে দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক।

পরিদর্শনশেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মেরামতের প্রয়োজনীয় লোকবলসহ মালামাল এরই মধ্যে ঘটনাস্থলে চলে এসেছে। অতিদ্রুতই এ রেলব্রিজটি মেরামত করা হবে। তবে আগামীকাল দুপুরের মধ্যেই ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এ সময় জেলা প্রশাসক খান মোহাম্মদ নুরুল আমিন, পুলিশ সুপার মাহবুব আলমসহ রেলবিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে মাঝপথে আটকে পড়ায় ব্যাপক ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রীদের। ট্রেন থেকে নেমে পায়ে হেঁটে দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে হয়েছে তাদের।

এদিকে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পৌলী ব্রিজে রেলসেতু ধসে পড়ার ঘটনায় ঢাকা থেকে উত্তর-দক্ষিণাঞ্চলের সব ট্রেনের সূচি বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া গতকাল রোববার এবং আজ সোমবার কলকাতা থেকে আসা মৈত্রী ট্রেনের সূচি বাতিল করা হয়েছে।