মার্কেটওয়াচ

বাজারে বিনিয়োগের সক্ষমতা নেই ব্যাংকগুলোর

২০০৯-১০ সালে ব্যাংকগুলো পুঁজিবাজারে এমনভাবে জড়িয়ে পড়ে যে তখন থেকে ধরে নেওয়া হয়, পুঁজিবাজার আসলে ব্যাংকনির্ভর। কারণ তখন মিউচুয়াল ফান্ড, বন্ড এবং মার্চেন্ট ব্যাংক তেমন উন্নতি করতে পারেনি। ওই সুযোগে ব্যাংক প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করেছিল পুঁজিবাজার থেকে অনেক লাভ করা যাবে এবং প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক লাভও করেছিল। এখন তারা সেখান থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে। কারণ তারা যে টাকা ঋণ দিচ্ছে তা ফেরত পাচ্ছে না। কী করে বাজারে বিনিয়োগ করবে। আসলে বাজারে বিনিয়োগ করার সক্ষমতা ব্যাংকগুলোর নেই। গতকাল এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানে বিষয়টি আলোচিত হয়। হাসিব হাসানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মার্কেন্টাইল ব্যাংক সিকিউরিটিজ লিমিটেডের সিইও ফাহমিদা হক এবং শান্তা অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের সিইও এমরান হাসান।
ফাহমিদা হক বলেন, এখন পুঁজিবাজার খারাপ অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। সবাই আশা করেছিল, এবারের বাজেটে পুঁজিবাজার সংক্রান্ত বেশকিছু প্রণোদনা থাকবে কিন্তু তেমন কিছু দেখা যায়নি। এবারে বাজেটে পুঁজিবাজার সংক্রান্ত করের বিষয়টি নিয়ে অনেক কোম্পানি দ্বিধাদ্বন্দ্বের মধ্যে রয়েছে। বিশেষ করে লভ্যাংশ ও রিটেনইড আর্নিংস নিয়ে। কারণ অনেক কোম্পানির লভ্যাংশ দেওয়ার সক্ষমতাই নেই। ওই কোম্পানিগুলো লভ্যাংশ দেওয়ার ক্ষেত্রে কী কী পদক্ষেপ নেবে সেটাই দেখার বিষয়। এ জন্য বাজারে সমস্যা তৈরি হচ্ছে।
এমরান হাসান বলেন, বর্তমান পুঁজিবাজারের অবস্থা সত্যিকার অর্থেই হতাশাজনক। বাজারের এ অবস্থার জন্য বেশকিছু কারণ রয়েছে। বড় সমস্যা হচ্ছে তারল্য সংকট। শুধু পুঁজিবাজারে নয়, মানি মার্কেটেও তারল্য সংকট রয়েছে। যখন বাজারে তারল্য সংকট সৃষ্টি হয় তখন দেখা যায় আইসিবি ভারসাম্য আনার জন্য বিনিয়োগ করে কিন্তু তাতেও বাজার স্থিতিশীল থাকে না। আসলে বাজার স্থিতিশীল রাখার জন্য পর্যাপ্ত তারল্য থাকা দরকার।
তিনি আরও বলেন, পুঁজিবাজার ব্যাংক নির্ভরশীল হওয়া উচিত নয়। ব্যাংকের কাজ আমানত সংগ্রহ করা এবং ঋণ দেওয়া। ব্যাংকের এটাই প্রধান ব্যবসা। পৃথিবীর কোনো দেশের ব্যাংকের ওপর পুঁজিবাজার নির্ভরশীল নয়। সেখানে দেখা যায়, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট, মার্চেন্ট ব্যাংক অর্থাৎ পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট যারা জড়িত থাকে তাদের ওপর নির্ভর করে। ২০০৯-১০ সালে ব্যাংকগুলো পুঁজিবাজারে এমনভাবে জড়িত হয়ে পড়ে যে তখন থেকে ধরে নেওয়া হয়েছে, পুঁজিবাজার আসলে ব্যাংকনির্ভর হয়ে পড়েছে। কারণ তখন মিউচুয়াল ফান্ড, বন্ড এবং মার্চেন্ট ব্যাংক তেমন উন্নতি করতে পারেনি। ওই সুযোগে ব্যাংক প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করেছিল এখান থেকে অনেক প্রফিট করা যাবে এবং প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক প্রফিটও করেছে। এখন তারা সেখান থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে। কারণ এখন তাদের ঋণ দিতেই সমস্যা। কী করে বাজারে বিনিয়োগ করবে। যে টাকা ঋণ দিচ্ছে তা ফেরত পাচ্ছে না। আসলে বাজারে বিনিয়োগ করার সক্ষমতা ব্যাংকগুলোর নেই। গত ৯ বছরে দু-একটি বছর ছাড়া প্রায় সময়ই বাজার ভালো যায়নি। এটি আসলে দেশের পুঁজিবাজারের জন্য হতাশাজনক। তবে বাজার এ রকম অবস্থা আজীবন থাকবে না বলে মনে হয়।

শ্রুতিলিখন: শিপন আহমেদ

সর্বশেষ..